সোমবার, ১১ নভেম্বর, ২০১৯

অযোধ্যা মামলার রায়ে আমি হতাশ, হতবাক : ‘রাম কে নাম’ তথ্যচিত্রের পরিচালক আনন্দ পট্টবর্ধন



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক :   অযোধ্যা মামলায় সুপ্রিম কোর্টের রায়ে ‘হতাশ, হতবাক’ বলে জানালেন ‘রাম কে নাম’ তথ্যচিত্রের পরিচালক আনন্দ পট্টবর্ধন।

পট্টবর্ধন বলেছেন,  সর্বোচ্চ আদালতের এই রায়ে আমি প্রচন্ড হতাশ, হতবাক! বাবরী  মসজিদকে জাতীয় স্মারক ঘোষণা করা হয়েছিল। তা শুধুই মুসলিমদের নয়, সব ভারতবাসীর। তিনি আরও বলেছেন,  যে রাজনৈতিক নেতারা বাবরী মসজিদ ধ্বংসের পিছনে ছিলেন, তাঁদের কখনও জেলে যেতে হয়নি। উল্টে তাঁদের এবার পুরস্কৃত করা হল!

আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামীরা যে মূল্যবোধের সিস্টেমের শপথ নিয়েছিলেন, একমাত্র তার  পুনর্নির্মাণের মাধ্যমেই বর্তমান অবস্থা থেকে ‘ধর্মনিরপেক্ষ  ভারত’ বাঁচতে পারে বলেও মন্তব্য করেছেন আনন্দ পট্টবর্ধন।

তিনি অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির তৈরির দাবিতে আন্দোলন ও  তাকে কেন্দ্র করে হিংসার বাতাবরণকে ফুটিয়ে তুলেছেন ‘রাম কে নাম’ তথ্যচিত্রে। ১৯৯০ সালে তিনি বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আদবাণীর রথযাত্রার ছবি তুলেছিলেন।

আনন্দ পট্টবর্ধন ওই তথ্যচিত্র তৈরির কাজে ১৯৯০ সালের অক্টোবরে অযোধ্যায় গিয়েছিলেন। তিনি সেই সময় বাবরী মসজিদ চত্বরে থাকা একটি মন্দিরের আদালত-নিযুক্ত পূজারী লাল দাশের  সাক্ষাতকার নিয়েছিলেন। লাল দাশ বিস্ফোরক দাবি করেছিলেন যে, হিন্দুত্ববাদীরা রাজনৈতিক ক্ষমতার লক্ষ্যে এগোচ্ছেন,  তাঁরা আর্থিক লোভ-লালসা দ্বারা চালিত। কিন্তু ১৯৯৩ সালে লাল দাশ রহস্যজনক ভাবে খুন হয়েছিলেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only