মঙ্গলবার, ২৬ নভেম্বর, ২০১৯

সুপ্রিম নির্দেশের পরেই পদত্যাগ করলেন দেবেন্দ্র ফড়নবিস, মুখ পুড়ল বিজেপির


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক : অবশেষে মহারাষ্ট্রের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিস ইস্তফা দিলেন। গত শনিবার সাত সকালে তিনি মুখ্যমন্ত্রী ও এনসিপি’র একাংশের নেতা অজিত পাওয়ার উপ-মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার পর থেকে রাজনৈতিক অঙ্গনে তীব্র চাঞ্চল্য ও বিতর্কের সৃষ্টি হয়। শেষমেশ আজ বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ সংবাদ সম্মেলন করে দেবেন্দ্র ফড়নবিস ইস্তফা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। এর আগে ইস্তফা দেন উপ-মুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ার। 

মহারাষ্ট্রে অবৈধভাবে সরকার গঠন করা হয়েছে অভিযোগে শিবসেনা-এনসিপি-কংগ্রেস জোট সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল। আজ (মঙ্গলবার) সেই মামলার রায়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এন ভি রমণ, বিচারপতি অশোক ভূষণ ও বিচারপতি সঞ্জীব খান্না সমন্বিত বেঞ্চ জানায় আগামীকালই মহারাষ্ট্র সরকারকে বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দিতে হবে। এরপরেই রাজ্য রাজনৈতিক তৎপরতা জোরালো হয়।

বিরোধী জোটের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় দেবেন্দ্র ফড়নবিস সরকারের সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকায় তিনি আস্থা ভোটে পরাজিত হবেন। বিজেপি নেতারা অবশ্য যথাসময়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দেবেন বলে ছাতি ঠুকেছিলেন। কিন্তু প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিধায়কের সমর্থন না থাকায় আদালতের নির্দেশ মেনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের পথে না হেঁটে তড়িঘড়ি পদত্যাগ করেছেন দেবেন্দ্র ফড়নবিস। 

দেবেন্দ্র ফড়নবিস আজ বলেন, ক্ষমতার লোভে বিজেপি কিছুই করেনি। আমরা কখনই ‘ঘোড়া কেনাবেচা’র মতো ব্যাপারে ছিলাম না। মহারাষ্ট্রে সরকার গড়া প্রাথমিক কর্তব্য ছিল তাই আমরা তা করেছি।’ তিনি বলেন, বর্তমানে আমাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই। সেজন্য ইস্তফা দিচ্ছি। বিরোধী আসনে বসে জনতার হয়ে কথা বলব।

আদালতের রায় ও দেবেন্দ্র ফড়নবিসের ইস্তফার মধ্য দিয়ে বিজেপি’র মুখ পুড়ল বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন। অন্যদিকে, বিজেপি বিরোধী শিবির এসব ঘটনায় নতুনভাবে উৎসাহিত হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।  

এপ্রসঙ্গে ‘ভাষা ও চেতনা সমিতি’র সম্পাদক ও কোলকাতার প্রেসিডেন্সী  কলেজের সাবেক অধ্যাপক ড. ইমানুল হক আজ ‘পুবের কলম’কে বলেন,  ‘দেবেন্দ্র ফড়নবিসের পদত্যাগ একটি নিমিত্ত মাত্র। আসল ঘটনা হচ্ছে  সংবিধান দিবসে ‘সংবিধানের জয়’। ঠগের বাড়িতে ঠগ যদি নিমন্ত্রণ খেতে যায়, যে নিমন্ত্রণ করেছে তাঁর মুখ পোড়ে এবং যিনি নিমন্ত্রণ খেতে যান  তারও মুখ পোড়ে।’ বিজেপির এটা হচ্ছে শেষের শুরু। ওঁরা ভেবেছিল ওঁরা অপরাজেয়, ওঁরা যা করবে তাই হবে। কিন্তু তা যে হচ্ছে না সেটাই আজ প্রমাণিত হল বলেও ড. ইমানুল হক মন্তব্য করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only