শনিবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৯

গান্ধিজির মৃত্যু দুর্ঘটনাতে! ওড়িশা সরকারের বুকলেট ঘিরে বিতর্ক

উদ্দেশ্য ছিল গান্ধিজীর ১৫০তম জন্মদিবসকে শ্রদ্ধার্ঘ্য জানান। আর তা করতে গিয়ে বড়সড় বিতর্ক বাধিয়ে বসল ওড়িশা সরকার। যা নিয়ে সর্বত্র নিন্দার ঝড়। তড়িঘড়ি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। 

এটা সর্বজনবিদিত যে রীতিমতো পরিকল্পনা করে ১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি মহাত্মা গান্ধিকে গুলি করে খুন করেছিলেন নাথুরাম গডসে। অথচ, ওড়িশার নবীন পট্টনায়েক সরকারের স্কুল-বুকলেটে গান্ধিজীর মৃত্যুকে ‘দুর্ঘটনা’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। যা নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। যা নিয়ে রাজ্যের বিরোধী দলগুলি থেকে শুরু করে সমাজকর্মীরা দাবি করেছেন– এই মারাত্মক ভুল সংশোধন করে ক্ষমা চান মুখ্যমন্ত্রী পট্টনায়ক। তাঁদের বক্তব্য– দুর্ঘটনা বলতে বোঝায় অনিচ্ছাকৃত ও সম্পূর্ণ আকস্মিক কোনও ঘটনা ঘটে যাওয়া। আর খুন বলতে বোঝায় পরিকল্পিত হত্যা। প্রশ্ন উঠছে– ওড়িশা সরকারের বুকলেট কি এটা বলতে চাইছে– গান্ধিজির মৃত্যু ‘আকস্মিক ঘটনা’। এর পিছনে কোনও পরিকল্পনা নেই? গডসের অপরাধকে কি আড়াল করার চেষ্টা হচ্ছে? এর ফলে পড়ুয়াদের মধ্যেই বা কি বার্তা যাবে? 

গান্ধিজির ১৫০তম জন্মবার্ষিকীকে শ্রদ্ধার্ঘ্য জানাতে ওড়িশা সরকার ‘আমা বাপুজিঃ একা ঝালাকা’ (এক ঝলকেঃ আমাদের বাপুজি) নামে দু’পাতার একটি স্কুল-বুকলেট প্রকাশ করে। তাতে গান্ধিজির কর্মজীবন– সংগ্রাম– নীতি– আদর্শ সংক্ষিপ্তভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে গান্ধির মৃত্যু নিয়ে যে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে তা নিয়েই তুমুল বিতর্ক তৈরি হয়েছে। শুরু হয়েছে প্রবল সমালোচনা। সেখানে বলা হয়েছে, ‘১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি দিল্লির বিরলা হাউজে হটাৎ ঘটে যাওয়া এক ঘটনার ধারাবাহিকতায় দুর্ঘটনাজনিত কারণে মৃত্যু হয় গান্ধিজির।’ স্বাভাবিকভাবেই বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। প্রশ্ন উঠছে, কীভাবে এতবড় ভুল একটা প্রকাশনী করতে পারে যারা সরকারি স্কুলের বই ছাপার দায়িত্বে রয়েছে? কেউ কেউ কটাক্ষ করে প্রশ্ন তুলেছেন, নবীন পট্টনায়ক তো কট্টর হিন্দুত্ববাদী শিবিরের নেতা নন, যারা গডসের মূর্তি বানিয়ে পূজা করে। তাহলে এমন ঘটনা কেন ঘটল? এই ভুলকে ‘ক্ষমারও অযোগ্য অপরাধ’ বলে কটাক্ষ করে কংগ্রেস নেতা নরসিংহ মিশ্র বলেন, বুকলেটে যে ত্রুটিপূর্ণ তথ্য দেওয়া হয়েছে সেজন্য সরকার প্রধান হিসেবে মুখ্যমন্ত্রীর অবশ্যই ক্ষমা চাওয়া উচিত। তাঁর বক্তব্য, ছাত্র-ছাত্রীদের বাস্তবটা জানা উচিত, কেন গান্ধিজিকে হত্যা করা হয়েছিল? কোন পরিস্থিতির জন্য গান্ধিজিকে হত্যা করা হয়েছিল? 

কংগ্রেসের কটাক্ষ, গান্ধিজির মৃতু্যকে এমনভাবে দেখানো হয়েছে যা গান্ধি-বিদ্বেষীদের খুশি করবে। প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ্ প্রফেসর মনোরঞ্জন মোহান্তি বলেন, ‘যারা এভাবে তথ্যের বিকৃতি ঘটানোর জন্য দায়ী তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হোক।’ সিপিআই নেতা আশিস কানুনগো বলেন, এটা সবাই জানে গান্ধিজিকে নাথুরাম গডসে হত্যা করেছিল। সেজন্য গডসের ফাঁসিও হয়েছিল। পড়ুয়াদের প্রকৃত তথ্য জানিয়ে দিতে হবে ও বুকলেটটি অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only