শনিবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৯

প্রদেশ কংগ্রেস দফতরে বিজেপির হামলা!(ভিডিয়ো)

ছবি ও ভিডিয়ো-চিন্ময় ভট্টাচার্য



চিন্ময় ভট্টাচার্য, কলকাতা

নজিরবিহীনভাবে চূড়ান্ত রাজনৈতিক আগ্রাসনের পরিচয় দিয়ে প্রদেশ কংগ্রেসের সদসর দফতর বিধান ভবনে হামলা চালাল বিজেপির যুব মোর্চার কর্মীরা। শনিবার সকাল ১১টা নাগাদ, প্রদেশ কংগ্রেসের সদর দফতরের কাছে রামলীলা ময়দান থেকে মিছিল করে বিধান ভবনে আসেন বিক্ষোভকারীরা। তাঁদের হাতে ছিল বিজেপির পতাকা। বিক্ষোভকারীরা রাফালে ইস্যুতে বিক্ষোভ দেখান। সুপ্রিম কোর্টের রায়ে রাফালে ইস্যুতে কংগ্রেস বেকায়দায় পড়েছে, এই দাবি করে রাহুল গান্ধির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখান।

এরপরই বিক্ষোভকারীদের কয়েকজন, বিধান ভবনের সামনে থাকা রাহুল গান্ধির ছবিতে ডান্ডা মারতে শুরু করেন। প্রিয়াঙ্কা গান্ধি ও সনিয়া গান্ধির ছবি ডান্ডা দিয়ে খুঁচিয়ে ছেঁড়ার চেষ্টা করেন। কয়েকজন বিক্ষোভকারী আবার সেই সময় প্রদেশ কংগ্রেসের বন্ধ সদর দফতরের লোহার গেট ধরে টানাটানি শুরু করেন। যুবমোর্চার পূর্বঘোষিত এই বিক্ষোভের কথা মাথায় রেখে এদিন বিধান ভবনের গেটে বন্ধ রেখেছিল কলকাতা পুলিশ।

সেই সময় বন্ধ গেটের সামনে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে পাহারায় ছিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ আবদুল জব্বার। কংগ্রেস কর্মীদের কাছে তিনি 'চাচা' নামে পরিচিত। প্রদেশ কংগ্রেসের অভিযোগ, আবদুল জব্বারকে লাঠি দিয়ে মারধর করা হয়।পাশাপাশি, 'চাচা' গায়েও কালিও ছিটিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব। পাশাপাশি, প্রদেশ কংগ্রেসের অভিযোগ, বিক্ষোভকারীরা কংগ্রেসের ফ্লেক্স ছিড়ে দিয়েছে। কালি ছিটিয়ে দিয়েছে রাহুল গান্ধির ছবিতে, ঢিল ছুড়েছে বিধান রায়ের মূর্তিতেও।

এই উত্তেজনা ক্রমশ রাড়তে থাকায় কলকাতা পুলিশের কর্মীরা বিক্ষোভকারীদের হঠিয়ে দেয়। প্রায় পঁয়তাল্লিশ মিনিট ধরে চলা এই হুলস্থূল পরিস্থিতি ঘটিয়ে বিজেপির যুব মোর্চার কর্মীরা চলে যাওয়ার পরই খবর পেয়ে প্রদেশ কংগ্রেস দফতরে ভিড় জমাতে শুরু করেন কংগ্রেসের নেতা-কর্মীরা। দুপুরে দিকে আসেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতা  অমিতাভ চক্রবর্তী, রাজ্যসভার সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য-সহ অন্যান্য নেতৃত্ব। প্রদীপবাবু রীতিমতো বিবৃতি জারি করে ঘটার তীব্র নিন্দা করেন। সেখানে লেখেন, ' আমার ৫০ বছরের রাজনৈতিক জীবনে এই ঘটনা নজিরবিহীন।'


এই ঘটনা থেকে দূরত্ব তৈরির চেষ্টা করেছে রাজ্য বিজেপিও। দিন রাজ্য দফতরে বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, রাহুল গান্ধির ছবিতে কালি লেপে দেওয়ার ঘটনা সমর্থন করি না।' একই সঙ্গে অবশ্য কংগ্রেসকে কটাক্ষ করে বলেন, 'রাজনৈতিক অসৌজন্য প্রথমে কংগ্রেসই শুরু করেছে। অতীতে কংগ্রেস কর্মীরা আমাদের দফতরের সামনে এসে বিক্ষোভ দেখিয়েছে। বিজেপিকে গালিগালাজ করেছে। তাদের দেখানো পথেই এদিন যুবমোর্চার কর্মীরা কর্মসূচি নিয়ে ছিলেন।'এই বিক্ষোভের পর সেন্ট্রাল এভিনিউয়ে বিজেপির রাজ্য দফতরের বাইরে বিক্ষোভ দেখান কংগ্রেস কর্মীরা। পুলিশ বিক্ষোভকারীদের আটক করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only