শুক্রবার, ২৯ নভেম্বর, ২০১৯

প্রেমিকা খুনে দোষী সাব্যস্ত প্রেমিককের যাবজ্জীবন



পুবের কলম, ওয়েব ডেস্ক,রামপুরহাট: প্রেমিকা খুনে দোষী সাব্যস্ত প্রেমিককে যাবজ্জীবনের সাজা শোনাল রামপুরহাট অতিরিক্ত দায়রা আদালত। দীর্ঘদিন বিচার পর্ব চলার পর বৃহস্পতিবার আসামীকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। এদিন সাক্ষী সবুদ ও সমস্ত নথি বিচার করে আসামীকে রামপুরহাট আদালতের অতিরিক্ত দায়রা জজ সুদীপ্ত ভট্টাচার্য আসামীকে ভারতীয় দণ্ড বিধির দোষী সাব্যস্ত করে যথাক্রমে ৩০২ ধারায় সশ্রম যাবজ্জীবন ও ৫০ হাজারটাকা ফাইন, অনাদায়ে ৯ মাস অতিরিক্ত কারাবাস,  ৩৬৪ ধারায় ১০ বছর কারাদণ্ড ৩০ হাজার টাকা ফাইন, অনাদায়ে ৬ মাস কারাবাস এবং ২০১ ধারারজন্য ৩ বছরের কারাদণ্ড ও ৩ হাজার টাকা ফাইন, অনাদায়ে ৩ মাস কারাবাস বলে জানান সরকারী আইনজীবী উৎপল মুখোপাধ্যায়। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন আইনি লড়াইয়ের পর এক অসহায় মহিলা ও তার পরিবার সুবিচার পেল। 

আদালত সূত্রে জানা গেছে, রামপুরহাট থানার অন্তর্গত নারায়ণপুর অঞ্চলের অধীন সাঁওতাল অধ্যুষিত ঝাড়খণ্ড সীমান্তবর্তী এলাকায় উপররণী গ্রামের বাসিন্দা বুদ্ধদেব টূডু ও রনি মূর্মূর মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বাবা ও ভাই মৃত থাকায় এবং আর্থিক অবস্থা খারাপ থাকার জন্য রনি মুর্মূ তার মামার বাড়িতে মায়ের সঙ্গে থাকতেন। ঘটনার দিন অর্থাৎ ২০১২ সালের ২৩ নভেম্বর রনি মূর্মূ তার মামি মেরিলা বাস্কি রান্না ঘরে রান্না করছিল। আর মৃতা রণি মুর্মূর মা মণি মুর্মূ পাশের ছিটেবেড়ার ঘরে বসে ছিলেন। সেই সময় আসামী বুদ্ধদেব টুডু তাকে টেনে হেঁচড়ে বাইরে নিয়ে যায়। বাড়িতে সেই সময় কোন পুরুষ সদস্য ছিল না

বাড়ির মেয়েরা খোঁজাখুজি করে রনিকে কোথাও পায়নি। গ্রামের মাঝি হারাম যতীন সোরেনের কথা অনুযায়ী, তারা বুদ্ধদেবের বাড়ি গেলে, তারা তাকে তাড়িয়ে দেয়। তারপর খোঁজাখুঁজির পর গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে ধানিজমির মধ্যে এক ঝোঁপে বাবলা গাছে বাঁধা অবস্থায় রনি মূর্মূর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। আসামী তাকে গাছে ঝুলিয়ে দিয়ে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করে। আসামীর কাকা সুরেন্দ্র টুডু এক জন তৃণমূল কর্মী। আসামীর পরিবার অবস্থাসম্পন্ন ছিলেন। আসামীর অন্য জায়গায় পয়সায় লোভে বিয়ে ঠিক হওয়ায় পথের কাঁটা হিসেবে দূর করতে চেয়েছিলেন। মৃতার মা মণি মুর্মূ রামপুরহাট থানায় খুনের অভিযোগ দায়ের করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only