রবিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৯

পাকিস্তান যাও, পুলিশ সুপারের হুমকি ভাইরাল

পুবের কলম, লখনউ: বিজেপি ও গেরুয়া দলগুলির সৌজন্যে এদেশের মুসলিমদের বহুবার পাকিস্তান যাওয়ার হুমকি শুনতে হয়েছে। তবে কোনও পুলিশকর্তা এমন হুমকি দিচ্ছেন এই খবর সেভাবে মেলেনি। এবার তা দেখালেন উত্তরপ্রদেশ পুলিশ সুপার। ২০ ডিসেম্বর মিরাটে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ চলছিল। সেই সময় মিরাটের পুলিশ সুপার (সিটি) অখিলেশ নারায়ণ সিং এক প্রতিবাদীকে বলেন, ‘এখানে না পোষালে তোমরা পাকিস্তান চলে যাও।’ পুলিশ সুপারের এই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল সাইটে। এখন তিনি এবং তাঁর সাঙ্গ-পাঙ্গরা ঢোঁক গিলে নানা সাফাই দেওয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু কথাটি যে বেমালুম উড়িয়ে দেবেন সে জো নেই। ইতিমধ্যেই এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন নেটিজেনরা।

পুলিশ সুপার অখিলেশ নারায়ণ সাফাই দিয়ে বলেছেন, আসলে ওরা ভারত বিরোধী এবং পাকপন্থী স্লোগান দিচ্ছিল। পুলিশের এই সাফাই অবশ্য কোনোভাবেই ধোপে টেকে না। কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধি যোগীর পুলিশের এই ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেছেন। শনিবার প্রতিক্রিয়ায় প্রিয়াঙ্কা বলেন, মিরাটের পুলিশ সুপার মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক মন্তব্য করেছেন। ট্যুইটে এর সমালোচনা করে তিনি লেখেন, ‘ভারতীয় সংবিধান এই ধরনের মন্তব্যকে অনুমোদন করে না। আপনি যখন সম্মানীয় পদে রয়েছেন, তখন আপনার দায়িত্ব আরও বেড়ে যায়। বিজেপি দেশের প্রতিষ্ঠানগুলিকে বিষাক্ত করছে। সে কারণেই দেশের সংবিধানের প্রতি এই ধরনের আধিকারিকরা সম্মান প্রদর্শন করছেন না। অথচ সংবিধান সামনে রেখে শপথ নিয়েছিলেন তাঁরা।’

মিরাটের লিসারি গেটে পুলিশ সুপার প্রতিবাদীদের উদ্দেশ্যে চিৎকার করে বলেন, ‘কাঁহা যাওগে, ইস গল্লি কো ঠিক কর দুঙ্গা।’ এরপর তিন প্রতিবাদীর দিকে  তেড়ে যান পুলিশ সুপার অখিলেশ। তিনি বলেন, ‘ইয়ে যো কালি অর পিলি পট্টি বাঁধে হুয়ে হ্যায়, ইনসে ক্যাহ দো পাকিস্তান চলে যাও। খাওগে ইঁহাকা–গাওয়ে কাহিঁ অর ক্যায়া...’।

পুলিশ সুপার অখিলেশেকে আড়াল করার চেষ্টা চালান মিরাট জোনের এডিজি প্রশান্ত কুমার। প্রশাসনের এমন সাম্প্রদায়িক মন্তব্যের দায় এড়াতে তিনি বলেন, দেশ বিরোধী স্লোগান দেওয়া হচ্ছিল। আপত্তিকর কাগজ বিলি হচ্ছিল। তখনই পুলিশ সুপার বলেছিলেন,  তোমরা যেখানে খুশি যেতে পার, এখানে এমন ভাঙচুর চলবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘স্বাভাবিক সময়ে পরিস্থিতি একরকম থাকে। তখন ঠান্ডা মাথায় কথা বলা যায়। কিন্তু এরকম পরিস্থিতিতে তা করা যায় না।’

এডিজির দাবি, তাঁর আধিকারিকরা খুবই সংযত ছিলেন।পুলিশকর্মীরা অযথা কারও সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেননি। যারা এই ভিডিয়ো ছড়াচ্ছে তারাই আসলে পরিস্থিতি বিষাক্ত করতে চাইছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only