শনিবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০১৯

ক্যাব-এনআরসি ওয়াপস লো

পুবের কলম প্রতিবেদক: এনআরসি ও নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে শুক্রবার হয়তো সবচেয়ে বড় জনসভাটি করলেন তিনি। এ দিন পার্ক সার্কাস ময়দানে লক্ষাধিক মানুষের উপস্থিতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করলেন, এ রাজ্যে এনআরসি হবে না। ক্যাব-এনআরসি ওয়াপস লো। উল্লেখ্য, এ দিন পাক সার্কাস ময়দানে ছিল থিকথিকে ভিড়। সভায় উপস্থিত জনতার মধ্যে এই সভাকে কেন্দ্র করে শুরু থেকেই বাড়তি আগ্রহ ছিল। আর তাই মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিটি বক্তব্যকে তাঁরা সিংহ গর্জনে সমর্থন জানিয়েছেন। প্রবল ধ্বনিতে তাঁরা বুঝিয়ে দিয়েছেন, এই লড়াইয়ে জনতা তাঁর সঙ্গেই আছে।

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন নিয়ম করে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে তাঁর দায়িত্ব নিয়ে সচেতন করছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বারবার শান্তি প্রতিষ্ঠায় রাজধর্মের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। তাতে কাজ না হওয়ায় শুক্রবার নাগরিকপঞ্জি ও নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি করলেন তিনি। বললেন, জেদ ছেড়ে দায়িত্ব পালন করুন প্রধানমন্ত্রী। এ দিন তিনি বলেন, গোটা দেশ জ্বলছে। পেশিশক্তি না দেখিয়ে গণতন্ত্রের কাছে মাথানত করুন। শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে এনআরসি ও নাগরিকত্ব আইন প্রত্যাহার করুন। এ দিন অটল বিহারী বাজপেয়ীর কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, আমার দৃঢ় বিশ্বাস অটলজি বেঁচে থাকলে আজকে ফের হয়তো তিনি রাজধর্ম পালনের কথাই বলতেন। এ দিন নরেন্দ্র মোদিকে তিনি স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, তিনি শুধু বিজেপির প্রধানমন্ত্রী নন। দেশের প্রধানমন্ত্রী। এই অবস্থায় দেশের মানুষের কথা ভেবে তাঁর উচিত হস্তক্ষেপ করা।

এখানেই শেষ নয়, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে আরও একধাপ এগিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো প্রশ্ন তোলেন, ‘মোদিজি আপনে ভোট কিউ নেহি ডালা? আপকা হি বিল ক্যাব। আপনে ওহি দিন পার্লামেন্ট মে থে। যব আপনে ভোট নেহি ডালা, মেরেকো আন্দাজা হেআপ ভি ইস কো সাপোর্ট নেহি করতা। আগর নেহি সাপোর্ট করতা তো ইসকো বাতিল কর দি জিয়ে।’

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে এই মুহূর্তে গর্জে উঠেছে দেশ। দফায় দফায় বিক্ষোভ, প্রতিবাদে অশান্ত হয়েছে দেশের রাজধানী দিল্লির পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশ সহ একাধিক রাজ্য। এর মাঝেই লখনউয়ে পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয়েছে এক বিক্ষোভকারীর।

অন্যদিকে, পুলিশের গুলিতে বেঙ্গালুরুতে নিহত হয়েছেন দু’জন। এ দিন সেই প্রসঙ্গ টেনে এনে এবার কেন্দ্রীয় সরকারকে তুলোধনা করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। পুলিশের গুলি চালনার সমালোচনা করে তিনি বলেন, কত গুলি চালাবেন? আমাকে গুলি করুন। সাধারণ মানুষকে খুন করবেন না।

পার্ক সার্কাস ময়দানের জনসভা থেকেও বিজেপির উদ্দেশে তীব্র কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছেন মমতা। তাঁর কথায়, এই মুহূর্তে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলা হিংসার জন্য দায়ী বিজেপি। যাঁদের ভোটে ক্ষমতায় এসেছেন এখন বলছেন, তাঁরা নাগরিক নয়? দেশবাসীকে তাড়াতে তাড়াতে নিজেরাই একদিন চলে যাবেন। কতজনকে তাড়াবেন? এ দিন এই সভায়  প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর প্রসঙ্গও টেনে আনেন মমতা। তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস অটলজি বেঁচে থাকলে রাজধর্ম পালন করতে বলতেন।

এ দিন নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে বৃহস্পতিবার চাওয়া গণভোটের এ দিন ব্যাখ্যা দিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। তিনি বলেন, আমি রাষ্ট্রপুঞ্জের নজরদারিতে গণভোটের কথা বলিনি। বলেছি, নাগরিকত্ব আইন প্রণয়ন করা ঠিক হয়েছে কি না, তা নিয়ে জনমত নেওয়া হোক। তাতে তৃণমূল বা বিজেপি নয়। নিরপেক্ষ মানবাধিকার সংগঠনগুলি দেখুক। মুখ্যমন্ত্রীকে এ দিন রাজ্যপালের মন্তব্য নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল। তিনি বলেন, ছাড়ুন তো! এক কথা কতবার বলব!

এ দিন পার্ক সার্কাসের মঞ্চ থেকে রাজ্যবাসীকে একতার বার্তাও দিয়েছেন মমতা। সম্প্রীতির শক্তির কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, আমরা সবাই এক। একসঙ্গে নমস্কার করব, আবার সালাম করব। একসঙ্গে লড়ব, একসঙ্গেই জিতব। হিংসার পথ ছেড়ে গণতান্ত্রিক উপায়ে প্রতিবাদের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, সকলে মিলে লড়াই করলে আন্দোলন সফল হবেই।

উল্লেখ্য, এ দিন পার্ক সার্কাস ময়দানে এনআরসি ও ক্যাবের প্রতিবাদে আয়োজিত সভায় উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের বিশিষ্ট কবি সাহিত্যিক, শিল্পীরা। ছিলেন জয় গোস্বামী, শুভাপ্রসন্ন, প্রতুল মুখোপাধ্যায় সহ বুদ্ধিজীবীদের একটা বড় অংশ। ছিলেন বিভিন্ন সম্প্রদায়ের ধর্মগুরুরা। আর ছিলেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, অরূপ বিশ্বাস, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, পূর্ণেন্দু বসু, ছিলেন সাংসদ নাদিমূল হক, আহমদ হাসান, দোলা সেন, শান্তনু সেন, সাজদা আহমেদ, সৌগত রায়, মালা রায় প্রমুখ। আর ছিলেন সাংস্কৃতিক জগতের লোকেরা। সকলেই এ দিন মুখ্যমন্ত্রীর সুরে সুর মিলিয়ে বলেছেন, আমরা এনআরসিও চাই না। চাইছি না ক্যাবও।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only