শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

পেঁয়াজ মজুতদারের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর




পুবের কলম, ওয়েব ডেস্ক: তুরস্ত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করার পরও দিনের পর দিন পেঁয়াজের দাম বেড়েই চলেছে। এই দাম বৃদ্ধিকে কেন্দ্র করে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছে সাধারণ মানুষ। অবশেষে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির কারণ খুঁজতে হস্তক্ষেপ করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে পর্যালচনা হয়। পর্যালচনায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, প্রয়োজনে আরও পেঁয়াজ আমদানি করা হবে এবং সেই সঙ্গে সেঙ্গ মজুতদারের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

দেশের সবথেকে বড়ো পেঁয়াজের বাজার হিসেবে ধরা হয় মহারাষ্টের নাসিকের লাসালগাঁওকে। সেখানে গত বুধবার পেঁয়াজের বাজার দর ছিল কুইন্টাল প্রতি ৫০২৫ টাকা। ২৪ ঘন্টার মধ্যে সেই পেঁয়াজের দাম হয়ে দাড়ায় কুইন্টাল প্রতি ৭৫০০ টাকা।

কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৪০-১৫০ টাকা কেজি দরে। এ নিয়ে মাথায় হাট উঠেছে সাধারণ মানুষদের। তারা এখন দিশেহারা। গুজবে এমনও শোনা যাচ্ছে কয়েকদিনের মধ্যে দাম আরও বাড়বে।

বিগত বছরের পরিসংখ্যান তুলে নির্মলা সীতারমণ জানান, গত মরসুমে যেখানে পেঁয়াজ উৎপাদিত হয়েছিল ৫০.৬৪ মেট্রিক টন সেখানে এবছর উৎপাদনের হার ৩৮.৮৭ মেট্রিক টন হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

রাজস্থান সহ বেশ কিছু রাজ্যের উদ্বৃত্ত পেঁয়াজ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। এছাড়াও পাইকারী ও খুচরো পেঁয়াজ মজুতকারীদের নির্দিষ্ট একটি সিমা বেঁধে দেওয়া হয়।

বড়ো ব্যবসায়ীরা আগে ৫০০ কুইন্টাল পেঁয়াজ মজুত রাখতে পারত। সেখানে তারা এখন ২৫০ কুইন্টাল পেঁয়াজ মজুত রাখতে পারবে। ছোট ব্যবসায়ীরা আগে পেঁয়াজ মজুত রাখতে পেত ১০০ কুইন্টাল। এখন তারা ৫০ কুইন্টালের বেশি পেঁয়াজ মজুত রাখতে পারবে না।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only