বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯

কীভাবে মেহেন্দির রঙ গাঢ় ও দীর্ঘস্থায়ী করবেন, জেনে নিন

মেহেদির গুরুত্ব বোঝা যায়  ঈদ আর বিয়ের মরসুম এলে। আর মেহেদির রঙ কতটা গাঢ় হল তা নিয়েও আছে নানা কুৃ-সংস্কার– কৌতুক! কিন্তু, এত শখের মেহেদিতে যদি ঠিক মত রঙ না হয় তবে? পুরো সময়, টাকা সবই যায় জলে। সুতরাং– ঈদ আর বিয়ের আগে আগেই আপনাদের জানিয়ে দিই মেহেদির রঙ আরও লাল, গাঢ় আর দীর্ঘস্থায়ী কীভাবে করবেন। 

প্রথমে আপনার পছন্দের ডিজাইন সিলেক্ট করুন। আর্টিস্টের কাছে গেলেও তাকে ভালোভাবে বুঝিয়ে বলুন, আপনি বিশেষ দিনটির জন্য কী চাচ্ছেন। কমিউনিকেশন গ্যাপ হয়ে গেলে আর্টিস্ট যত সুন্দর করেই কাজ করুক না কেন আপনার পছন্দ নাও হতে পারে।

চেষ্টা করুন ন্যাচারাল মেহেদি ব্যবহার করতে। এখন প্রায় সব আর্টিস্ট নিজের হাতে বানানো মেহেদি ব্যবহার করে আবার বিক্রিও করে। বাজারে খুঁজে না পেলে তাঁদের কাছ থেকে কিনতে পারেন।

এক ঢিলে দুই পাখি মারার আশায় গোল্ড– একটিভ নামে কেমিকেলের ব্যবহার করলে নিজের দায়িত্বে করবেন। কিন্তু দয়া করে নিজের বাচ্চার হাতে ঈদের আগের রাতে এগুলো দেবেন না যেন!

হাতের আর পায়ের যে অংশে মেহেদি দেবেন তা ভালো ভাবে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন। সাবান দিয়ে না ধুলে স্কিনে রঙ বসে না।

একটা পুরনো কাপড়– একটা সুঁই আগে থেকে কাছে নিয়ে বসুন। মেহেদি দেওয়ার ঠিক আগে আগে ওয়াক্সিং– ম্যানিকিওর– পেডিকিওর করাবেন না। দেখা গেছে– এসবের ঠিক পর পর মেহেদি দিলে রঙটা পানশে বাদামি হয়ে যায়।
বেশ ভালো আলো আছে এমন জায়গায় বসুন। এতে ভুল কম হবে। আর আর্টিস্টের কাছে বসলে বারবার নড়াচড়া করবেন না। এতে ডিজাইন নষ্ট হয় আর্টিস্টও বিরক্ত হয়! 
মেহেদির মধ্যে কচি পেয়ারা পাতা– লেবুর রস– চা ইত্যাদি ব্যবহার করলে রঙ অনেক গাঢ় হয় কারণ এগুলো মেহেদির কালারিং প্রপার্টি একটিভেট করে। নিজে বানালে একটু করে মিশিয়ে নিতে পারেন। আর্টিস্টকেও বলতে পারেন যাতে এগুলো ব্যবহার করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only