শুক্রবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯

নেট পরিষেবা পেতে ঝাড়খণ্ডে ছুটছেন মুর্শিদাবাদের সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা

নেটের নেশায় মুর্শিদাবাদের ছেলেরা ঝাড়খণ্ড সীমান্তে
সামিম আক্তার, ধূলিয়ান: কারও বা নিত্য প্রয়োজন আবার কারও শখ। টানা চারদিন পেরোলেও ইন্টারনেট পরিষেবা চালু না হওয়ায় বেজায় সমস্যায় পড়েছেন মুর্শিদাবাদ জেলার বিভিন্ন পেশা ও শ্রেণির মানুষ। নেট পরিষেবা বন্ধ হওয়ার পর সীমান্তবর্তী এলাকার অনেকেই বাধ্য হয়ে পাশের রাজ্যকেই ভরসা করেছেন। মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জ, ফরাক্কার ঝাড়খণ্ড লাগোয়া এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে এই প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

একদিকে যুব সমাজের মধ্যে নেটের নেশা, অন্যদিকে ব্যাঙ্ক কর্মী বা সিএসপিদের পেশার তাগিদে নেটের পেশায় সকাল হতেই মুর্শিদাবাদের সীমানা পেরিয়ে ঝাড়খণ্ডের গ্রামে রাস্তার ধারে কিংবা মাঠে ব্যস্ততার চিত্র লক্ষ্য করা যাচ্ছে।


জানা গিয়েছে, সামশেরগঞ্জের ভাসাইপাইকর গ্রাম পঞ্চায়েতের চাঁদপুর, অন্তরদীপা, অদ্বৈতনগর এলাকার ঠিক পার্শ্ববর্তী গ্রাম পেরোলেই ঝাড়খণ্ডের সীমানা। গ্রাম থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার পেরোলেই ঝাড়খণ্ডের পাকুর জেলার গ্রাম কাবিলপুর, জানকিনগর, চাঁচকি, মণিরামপুর। মাঝে একটি বর্ষাকালের ভরাট হওয়া মাসনা নদী থাকলেও নিত্যদিন ব্যবসার সূত্রে এপারের মানুষ ওপারে, আবার ওপারের মানুষ এপারেই যাতায়াত করেন। কিন্তু সম্প্রতি নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে জেলাজুড়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটায় গত রবিবার থেকে মুর্শিদাবাদ জেলাজুড়ে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দিয়েছে রাজ্য সরকার।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পরিষেবা স্বাভাবিক করা হয়নি জেলায়। এ দিকে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ থাকায় চরম সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে ব্যাঙ্ক কর্মী থেকে শুরু করে কাস্টমার সার্ভিস পয়েন্ট, তথ্যমিত্র কেন্দ্রের ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষকে।

অন্যদিকে, সারাবছর নিত্যদিন নেট পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত হয়ে থাকলেও নেট বন্ধ থাকায় কার্যত চোখের ঘুম ছুটেছে যুব সমাজের। তাই জেলাজুড়ে নেট বন্ধ হলেও সকাল হলেই কেউ নেটের নেশায় আবার কেউ পেশায় মুর্শিদাবাদ লাগোয়া ঝাড়খণ্ডের গ্রামগুলোতে নেট চালাতে ছুটছেন। কেউ সকালে, কেউ দুপুরে, কেউ কেউ আবার বিকেল কিংবা সন্ধ্যা। সুযোগ মতো দিনের একটা সময়ে নেট চালাতে ছোটাছুটির চিত্র লক্ষ্য করা যাচ্ছে এলাকার মানুষদের মাঝে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জের অন্তরদীপা গ্রাম থেকে সাইকেল চালিয়ে কাবিলপুরের মূল রাস্তার ধারে মাঠের মাঝে বসে নেট চালাচ্ছিলেন সাকিম শেখ, ইসব শেখ, হাবিবুর রহমান, ফেরদাউস শেখ, সোহেল রানা ও আশরাফুল ইসলাম নামে গুটিকয়েক যুবক। জিজ্ঞেস করতেই তাঁরা জানান, চারদিন থেকে নেট বন্ধ থাকায় দিনে একবার, কখনও আবার দুবার নেট চালাতে এবং আড্ডা দিতে ঝাড়খণ্ডের গ্রামে যান। সেখানে কেউ গেম আবার কেউ সিনেমা দেখেই কার্যত ফিরে আসেন। আবার এ দিনই ডাকবাংলা থেকে ঝাড়খণ্ড যাওয়ার মূল রাস্তায় দাঁড়িয়ে ট্রেনের টিকিট কাটছিলেন এক সিএসপি দোকানদার আশরাফুল ইসলাম। তিনি জানান, নেট বন্ধ থাকায় আমরা চরম সমস্যায় পড়েছি। বাধ্য হয়েই ঝাড়খণ্ডে আসতে হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only