শুক্রবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে উত্তাল দেশ, নিহত ৩


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক :  বিতর্কিত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রাজ্যের প্রতিবাদী জনতা বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠায় কমপক্ষে ৩ জন নিহত হয়েছে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) উত্তর প্রদেশের লক্ষনৌয়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান মুহাম্মাদ উকিল (২৫) নামে এক যুবক। অন্যদিকে, কর্ণাটকের মেঙ্গালুরুতে জনতা ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ হলে পুলিশের গুলিতে জলিল (৪৯) এবং নৌশিন (২৩) নামে দুই প্রতিবাদী জনতা নিহত হন।
লক্ষনৌয়ে নিহত মুহাম্মাদ উকিল পরিবারের অভিযোগ, সংঘর্ষের এলাকা দিয়ে যাওয়ার সময়ে পুলিশ তাঁকে গুলি করে। কিন্তু পুলিশের ডিজি’র দাবি, এই মৃত্যুর সঙ্গে বিক্ষোভের আদৌ যোগ নেই।
এদিকে, গোলযোগপূর্ণ মেঙ্গালুরুতে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে ২২ ডিসেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত কারফিউয়ের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। উত্তর প্রদেশের উত্তপ্ত এলাকাগুলোতেও কারফিউ কার্যকর রয়েছে। নিরাপত্তাজনিত কারণে লক্ষনৌ, বুন্দেলখণ্ড ও এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত পরীক্ষা পরবর্তী নির্দেশনা পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে।
উত্তর প্রদেশে তুমুল বিক্ষোভের জেরে সেখানে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এসময় প্রতিবাদী জনতা ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষে উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদ, লক্ষনৌ, সম্ভল, আলীগড়, মীরাট, সাহারানপুর, বেরেলি, আগ্রা, পিলিভিট, ফিরোজাবাদ, হামিরপুর, প্রয়াগরাজ, মউ এবং আজমগড়ে ইন্টারনেট পরিসেবা বন্ধ রাখা গেছে। এছাড়া দিল্লির অনেক এলাকায় মোবাইল ইন্টারনেট পরিসেবা বন্ধ করা হয়েছে।
উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বৃহস্পতিবার গভীর রাতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজ্যের সকল জেলা প্রশাসক ও পুলিশের এসএসপিদের সাথে কথা বলেন। এসময় পরিস্থিতি মোকাবিলায় আজ শুক্রবারের রণকৌশল নিয়েও সংশ্লিষ্টদের মধ্যে আলোচনা হয়।
বিতর্কিত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে দিল্লি, উত্তর প্রদেশ, মহারাষ্ট্র, পশ্চিমবঙ্গ, কর্ণাটক, বিহার, মধ্য প্রদেশসহ বিভিন্ন রাজ্যে মানুষজন সড়কে নেমে ব্যাপক বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only