বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯

সংস্কৃত বিভাগ ছেড়ে কলা বিভাগে ফিরোজ খান!



বিতর্কের ইতি টানলেন তিনি নিজেই।বেনারস হিন্দু  বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত বিভাগের (সংস্কৃত বিদ্যা ধর্ম বিজ্ঞান বিভাগ) সহ-অধ্যাপকের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন ফিরোজ খান। সংস্কৃত  বিভাগ ছেড়ে আর্টস (কলা) বিভাগে যোগ দিয়েছেন তিনি। অর্থাৎ, কলা বিভাগে সংস্কৃত পড়াবেন তিনি। যদিও এই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে এখনও কিছু জানানো হয়নি। 

সংস্কৃত  বিভাগে এক মুসলিম শিক্ষকের নিয়োগ নিয়ে তুমুল হইচই হয় বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে। বিজেপির মদদপুষ্ট ছাত্ররা দাবি করতে থাকেন, কোনও অহিন্দু অধ্যাপকের থেকে তাঁরা বৈদিক ভাষার পাঠ নেবেন না। এই নিয়ে তাঁরা দীর্ঘদিন ধরে বিক্ষোভও দেখান। এরপরও প্রায় এক মাস ধৈর্য ধরে ছিলেন তিনি। কোনও আলোচনাতেও মেলেনি সমাধান সূত্র। আন্দোলনকারী পড়ুয়ারা নিজেদের দাবিতে পুরোপুরি অনড় থাকেন। মনে করা হচ্ছে, সে কারণেই কলা বিভাগে যোগ দিয়েছেন ফিরোজ। 

গত নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত  বিভাগে সহকারী অধ্যাপক নিযুক্ত হন ফিরোজ। তাঁর নিয়োগ নিয়ে আপত্তি তোলেন পড়ুয়াদের একাংশ। তাঁরা দাবি করতে থাকেন, কোনও মুসলিম শিক্ষকের থেকে তাঁরা সংস্কৃত  পাঠ নেবেন না। আন্দোলকারী ছাত্রদের পাশে দাঁড়ায় এবিভিপি। যা নিয়ে মনোক্ষুণ্ণ হয়েছিলেন ফিরোজ। বলেছিলেন, ‘আমি দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে সংস্কৃত  নিয়ে পড়াশোনা করে এসেছি। আমার এলাকায় প্রায় ৩০ শতাংশ মুসলিম থাকা সত্ত্বেও কোনওদিন আলাদা করে আমার পরিচয় নিয়ে প্রশ্ন ওঠেনি। আজ যখন আমি শিক্ষকতা করতে যাব তখন আমার ধর্মকে টেনে আনা হচ্ছে।’ শুধু তাই নয়, আন্দোলনকারী পড়ুয়াদের উদ্দেশে বার্তা দেন---সংস্কৃত নিয়ে পড়াশোনার সঙ্গে ধর্মের কোনও সম্পর্ক নেই। তিনি ভেবেছিলেন, এতে হয়তো আন্দোলকারী ছাত্রদের মন বদলাতে পারে। কিন্তু, তেমনটা হয়নি। সে কারণেই হয়তো বাধ্য হয়ে তিনি কলা বিভাগে যোগ দিয়েছেন।   

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only