রবিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৯

ম্যাঙ্গালুরুতে নিহতদের পরিবারের হাতে চেক তুলে দিলেন তৃণমূলের প্রতিনিধিরা


পুবের কলম, প্রতিবেদক: কর্নাটকে এখন চলছে বিজেপি রাজ। সম্প্রতি এনআরসি ও সিএ বিরোধী আন্দোলন ঠান্ডা করতে ম্যাঙ্গালুরুতে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে তীব্র বর্বরতায় নেমে আসে পুলিশ। তাদের গুলিতে ২ মুসলিম পরিবারের ২ জন সদস্য নিহত হন। মারাত্মক জখম হয়েছেন অনেকে।
কিন্তু শুধু পুলিশি বর্বরতায় শেষ নয়। রাজ্য সরকারের আচরণও মানুষকে ব্যাপকভাবে ক্ষুব্ধ করেছে। ম্যাঙ্গালুরুতে গুলিতে মুসলিম দুই পরিবারের যে দু’জন নিহত হন, বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা তাদের জন্য ১০ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু হঠাৎই মত পালটে ইয়েদুরাপ্পা বলেন, ঘোষণা করলেও এই ২ মুসলিম পরিবারকে প্রদেয় ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা তিনি প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন। কারণ ভিডিয়ো ফুটেজে নাকি দেখা গেছে, নিহতরা সহিংস আন্দোলনে প্ররোচনা দিচ্ছিলেন। কাজেই আমরা নিহত ২ মুসলিম পরিবারের সদস্যদের আমরা একটি পয়সাও দেব না।
কিন্তু নিহত ওই ২ ব্যক্তির পরিবারের বক্তব্য হচ্ছে, তারা কোনও প্রতিবাদ বা আন্দোলনে শামিল ছিলেন না। তারা শুধু ওই স্থানে দাঁড়িয়েছিলেন। কাজেই ম্যাঙ্গালুরু পুলিশের বক্তব্য সত্য নয়।

নিহতদের পরিবারকে সহায়তা করার জন্য কর্নাটকের বিজেপি সরকার হঠাৎ মানবিকতা প্রদর্শন করেও তা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় খুবই ক্ষুদ্ধ হন। বৃহস্পতিবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলের একটি সমাবেশ চলাকালীন ঘোষণা করেন যে, তৃণমূল কংগ্রেস কর্নাটকে এই ২ নিহতের পরিবারপিছু ৫ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেবে।
মমতার এই ঘোষণায় কর্নাটকের বিজেপি সরকার শুধু অস্বস্তিতে পড়া নয়, দেশজুড়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে। স্বভাবতই ক্ষুব্ধ কর্নাটকের গেরুয়া শিবির। বিজেপি সাংসদ শোভা কারনদলাজে মমতার সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, কর্নাটকে কী হচ্ছে বা না হচ্ছে তার সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোনও সম্পর্ক নেই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উচিত, সেই শত-শত হিন্দুকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা চিন্তা করা যারা রাজনৈতিক হিংসার বলি হয়েছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যেমন কথা, তেমন কাজ। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি-র প্রতিবাদে ম্যাঙ্গালুরুতে যে ২ জন মারা গিয়েছিলেন, তাদের পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা করে অনুদান দেওয়ার জন্য ম্যাঙ্গালুরু পাঠান দলের প্রাক্তন সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদি ও রাজ্যসভার সাংসদ নাদিমুল হককে। দেখা যায়, ইয়েদুরাপ্পা মুখ ফিরিয়ে নিলেও এই ঘটনায় মানবিক মুখ নিয়ে এগিয়ে এলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি দিয়েও তা ভঙ্গ করেছে কর্নাটক সরকার। তৃণমূল গরিব দল হলেও মানুষের পাশে থাকে, মানবিকতার পাশে থাকে। তাই আমরা এই সহায়তা প্রদান করছি।’

দলনেত্রীর সেই নির্দেশমতো, এ দিন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধিরা নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। তাঁদের দেখে নিহতের পরিবাররা কান্নায় ভেঙে পড়েন। দীনেশ ত্রিবেদি শোকার্ত পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা দেন। পেশায় শ্রমিক, নিহত নৌসিনের মা মমতাজ বেগমের হাতে পাঁচ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেন প্রাক্তন সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদি। নিহত জলিলের স্ত্রী ও ছেলেমেয়েদের হাতেও তুলে দেওয়া হয় ৫ লক্ষ টাকার আরও একটি চেক। এরপর তৃণমূল প্রতিনিধিরা ম্যাঙ্গালুরুর ইউনিটি হাসপাতালে গিয়েও আহত প্রতিবাদীদের সঙ্গে দেখা করেন। তাঁরা বলেন, এই আন্দোলনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের পাশেই আছেন।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only