বুধবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

সুপ্রিম কোর্টে মহুয়া মৈত্রের মামলায় হেরে গেল কেন্দ্র

পুবের কলম, ওয়েব ডেস্ক: দেশের নাগরিকরা আধার কার্ড নিয়ে কি আলোচনা করছেন এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় কি মন্তব্য করছেন, তার নজরদারির জন্য এক সংস্থা গঠনের ঘোষণা দিয়েছিল আধার কার্ড বা ইউআইডিএআই কর্তৃপক্ষ। সেই উদ্যোগকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। সেই মামলায় হেরে গেল কেন্দ্রীয় সরকার। এই মামলার শুনানিতে আধার কার্ড কর্তৃপক্ষ ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়ে দিয়েছে তারা নজরদারি করতে যে মিডিয়া হাব তৈরির টেন্ডার ডেকেছিল, তা প্রত্যাহার করা হল। সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারি নিয়ে তারা আর কোনও পদক্ষেপ নেবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। 

মঙ্গলবার এই মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি সঞ্জয় কৃষাণ কাউল ও বিচারপতি কে এম জোশেফ-এর ডিভিশন বেঞ্চে অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল জানান, আধার কর্তৃপক্ষ নজরদারি সংক্রান্ত সংস্থা নিয়োগে টেন্ডার প্রত্যাহার করেইক্ষান্ত হচ্ছে না, তারা সোশ্যাল মিডিয়া হাব গঠনের সব উদ্যোগ বাতিল করেছে।

উল্লেখ্য, সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারি করার জন্য ২০১৮ সালে এক বেসরকারি সংস্থা নিয়োগ করার উদ্যোগ নেয় আধার কার্ড কর্তৃপক্ষ। বিশেষ করে হোয়াটঅ্যাপ, ট্যুইটার, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম প্রভৃতিতে জেলাভিত্তিক নজরদারি করতে সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রস্তাব রাখে ইউআইডিএআই বা আধার কর্তৃপক্ষ। এমনকী ই-মেলের উপর নজরদারি করা প্রস্তাব দেওয়া হয়। সেই প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমোদন নিয়ে আধার কর্তৃপক্ষ একটি বেসরকারি সংস্থা নিয়োগ করতে টেন্ডার ডাকে যে সংস্থার উপর দায়িত্ব থাকবে সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারি করে কে-কি মন্তব্য করছে, তা নিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা। কিন্তু সেই উদ্যোগ জনগণের ব্যক্তিগত অধিকারের উলঙ্ঘন বলে দাবি করে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তাঁর হয়ে বিশিষ্ট আইনজীবী অভিষেক মনু সিংভি, নিজাম পাশা সওয়াল করেন শীর্ষকোর্টে। তাঁরা বলেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারি, নাগরিক মৌলিক অধিকারকে ক্ষুণ্ণ করবে এবং নাগরিকের গোপনীয়তা রক্ষা হবে না। শুনানির সময় অবশ্য কেন্দ্রের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয় ই-মেলে আর নজরদারি করা হবে না এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারির জন্য প্রস্তাবিত টেন্ডারও বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের এই ঘোষণার পর উল্লসিত হয়ে পড়েন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। তিনি তাঁর ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে তাই লেখেন, তাঁর পিটিশনের ভিত্তিতে আধার কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া নজরদারির জন্য গঠন করা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হচ্ছে। এমনকী ভবিষ্যতেও এ ধরনের নজরদারি চালানোর কোনও পরিকল্পনা নেই বলে জানান আধার কর্তৃপক্ষ। এই সাফল্যকে এক বড় জয়ের দিন বলে অভিহিত করেন মহুয়া মৈত্র। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only