শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

কিভাবে হল এনকাউন্টার? পড়ুন


ফুল দিয়ে পুলিশকে সম্বর্ধনা জানাল মানুষ

পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক, হায়দরাবাদ: শুক্রবার ভোরে পুলিশ এনকাউন্টারে নিহত হয়েছে হায়দরাবাদের পশুচিকিৎসক ধর্ষণ ও খুন ঘটনার অভিযুক্তরা। শুক্রবার সকালে খবরটি ছড়িয়ে পড়তেই তেলেঙ্গানা পুলিশকে সেল্যুইট করছে গোটা দেশ। রাজনীতিক, অভিনেতা থেকে সাধারণ মানুষ পুলিশের ভূমিকার প্রশংসা করেছেন। অনেক জায়গায় পুলিশের কাজে সুবিচার পেয়ে রীতিমত উৎসব শুরু হয়েছে। কিন্তু কেন হঠাৎ পুলিশ এনকাউন্টার করতে বাধ্য হল, তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। তাই শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সব প্রশ্নের সরাসরি উত্তর দিয়েছেন সাইবেরাবাদ পুলিশ কমিশনর ভি সি সাজ্জানার।  কিভাবে ভাবে এবং কেন অভিযুক্তদের এনকাউন্টর করা হল তাও তিনি খুলে বলেন। পুলিশ কমিশনর জানান- 

১. এদিন ভোর রাতে পুলিশ ওই চার অভিযুক্তকে সঙ্গে করে ঘটনাকে পুনসরস্থাপন করতে ধর্ষণস্থলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।

২. তাদের ভোর সাড়ে ৩টে নাগাদ ছেরাপল্লি সেন্ট্রাল জেল থেকে কড়া নিরাপত্তায় তাদের ৩০ কিলোমিটার দূরে ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই সেন্টার জেল থেকে ঘটনাস্থলের দূরত্ব ৩০কিলোমিটার।

৩. প্রথমে তাদের শামশাবাদ টোল প্লাজায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই  ২৭ নভেম্বর ওই পশুচিকিৎসককে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। 

৪. এরপর পুলিশ অভিযুক্তদের ওই পেট্রোলপাম্পে নিয়ে যায়, যেখান থেকে তারা ২৭ নভেম্বর ওই পশুচিকিৎসকের দেহ পোড়াবার জন্য পেট্রোল কিনে ছিল।

৪. সেখান থেকে তাদের ওই আন্ডারপাসের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই আন্ডারপাসেই তরুণীকে ধর্ষণ করা পর খুন করে দেহ জ্বালিয়ে দেওয়া হয়ে ছিল।

৫. আন্ডারপাসের কাছে অভিযুক্তদের নিয়ে যাওয়ার পর ঘটে যায় অন্য আরও এক ঘটনা।

৬. পুলিশ হেফাজত থেকে পালাতে দুই পুলিশ কর্মীর বন্দুক ছিনতাই করে নেয় ওই অভিযুক্তরা।

৭. পুলিশ তাদের ধরতে গেলে, ছিনতাই করা রিভলভার দিয়ে গুলি ছুঁড়তে থাকে তারা। ইটবৃষ্টিও করে।

৮. অভিযুক্তদের সঙ্গে সেই সময় পুলিশের ৪৫মিনিট ধরে সংঘর্ষ চলে।

৯. তাতে দু'পুলিশ কর্মী আহত হয়।

১০. এতেই পুলিশ ওই চারজনকে এনকাউন্টার করতে বাধ্য হয়েছে।

১১. পুলিশ কমিশনার ভি সি সা্জ্জানার দাবি করেছেন, আত্মীরক্ষা করতে গিয়েই বাধ্য হয়ে অভিযুক্তদের ওপর গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছেন পুলিশকর্মীরা।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only