শনিবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

বনগাঁর বোয়ালদহে শান্তি, সম্প্রীতি ও ধর্মনিরপেক্ষতাকে সমুন্নত রাখার বার্তা



এম এ হাকিম, বনগাঁ :  উত্তর ২৪ পরগণার বনগাঁর বোয়ালদহে এক আলোচনা সভায় শান্তি ও সম্প্রীতির বার্তা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার রাতে হেজবুল্লাহ কমিটি আয়োজিত সম্প্রীতিমূলক আলোচনাসভায় যোগ দিয়ে সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ কামরুজ্জামান মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার, দেশের সাংবিধানিক ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শকে সমুন্নত রাখা ও মানুষে মানুষে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানান। তিনি জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে প্রতিবেশিদের সঙ্গে সদ্ভাব বজায় রাখা, অসহায় মানুষদের সাহায্য করার কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘এনআরসি ও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে মুসলিমদের পাশাপাশি অমুসলিম ভাইরাও দেশ জুড়ে পথে নেমে আন্দোলনে শামিল হয়েছেন এটা আশার কথা। আমাদের জন্য ভরসার ও আস্থার বিষয়। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা এনআরসি, সিএএ বা ‘ক্যা’-এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন।’

এপ্রসঙ্গে তিনি দিল্লির ঐতিহাসিক জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের বিরুদ্ধে পুলিশি অত্যাচারের ঘটনায় এদেশের সমস্ত শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষের পাশাপাশি গোটা পৃথিবীর সুশীল সমাজের মানুষ সোচ্চার হয়েছেন বলে মন্তব্য করেন।

মুহাম্মাদ কামরুজ্জামান বলেন, ‘এদেশে বরাবরই হিন্দু  ভাইয়েরা সংখ্যাগরিষ্ঠ আছেন। ব্রিটিশরা যখন দু’শো বছর ধরে এদেশ শাসন করেছিল তখন এদেশে হিন্দু ভাইদের সংখ্যা বেশি ছিল। মোঘলরা যখন পাঁচশ’ বছর ধরে এই দেশকে শাসন করেছিল তখনও এদেশে হিন্দু ভাইদের সংখ্যা বেশি ছিল। সুলতানরা যখন দু’শো বছর ধরে এই দেশ শাসন করেছিল তখনও কিন্তু এই দেশে হিন্দু ভাইদের সংখ্যা বেশি ছিল। আমাদের পূর্বে যেসব হিন্দু ভাইরা ছিলেন তাঁরা কখনও বলেননি যে আমরা যেখানে সংখ্যায় বেশি সেজন্য ভারতবর্ষ ‘হিন্দু রাষ্ট্র’ হবে। একথা কেউ বলেননি।  সংবিধান প্রণেতা ভারতরত্ন বাবা সাহেব বি আর আম্বেদকর তিনি বলেছেন যে এই ভারতবর্ষের আলাদা বিশেষত্ব আছে, এই ভারতের আলাদা আত্মা আছে, সনাতন মতাদর্শ আছে। কিন্তু যেদিন ভারতবর্ষ ‘হিন্দু রাষ্ট্র’ হবে সেদিন ভারতবর্ষের প্রকৃত আত্মার মৃত্যু হবে।’

এদিনের ওই আলোচনা সভায় শ্রী রামকৃষ্ণ মিশন সারদা সেবাশ্রমের স্বামী সত্যরূপানন্দজি মহারাজ তাঁর বক্তব্যে বলেন, সকল মানুষ সমান, সকলেই ভাইভাই। আমাদের  একটাই ধর্ম, তা হল ‘মানব ধর্ম’। আমাদের আলাদা আলাদা নাম, ধর্ম, সম্প্রদায় হতে পারে কিন্তু আমাদের মূল কথা হল আমরা মানুষ। প্রত্যেক ধর্মই শান্তির কথা বলেছে, আলোবাসার কথা বলেছে। সেজন্য আমাদের মধ্যে কোনও বিভেদমূলক চিন্তাভাবনা থাকবে না। আপনারা কোনও চিন্তা করবেন না। ওপরওয়ালা আমাদের সাথে আছেন। পৃথিবীর কোনও শক্তি নেই যে, আমাদের কেউ বিভেদ করতে পারে। পরম করুণাময় খোদাতায়ালা তিনিই আমাদের রক্ষা করবেন। তাঁর কাছেই কেবল আমরা আত্মসমর্পণ করব। আর কোথাও আমরা আত্মসমর্পণ করব না।’

স্বামী সত্যরূপানন্দজি মহারাজ এদিন সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ কামরুজ্জামানের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে শিক্ষার প্রসারে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন ও বিভিন্ন গণআন্দোলনে তাঁর ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন।

বোয়ালদহ ‘হেজবুল্লাহ কমিটি’ আয়জিত এদিনের ওই সভায় বনগাঁ মহকুমার পুলিশ কর্মকর্তা (এসডিপিও) অশেষ বিক্রম দোস্তিদার মানুষে মানুষে মিলেমিশে বাস করা, শান্তি ও সম্প্রীতি অক্ষুণ্ণ রাখার উপরে বিশেষ জোর দেন। তিনি এদিন স্বরচিত কবিতা পাঠ করলে তা বিশেষভাবে প্রশংসিত হয়। সম্প্রীতিমূলক আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে তফসিরুল কুরআন মহফিলে বিশিষ্ট আলেমরা বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বনগাঁ সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা আব্দুল মাবুদ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only