শনিবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের শপথ প্রদেশ কংগ্রেসের



চিন্ময় ভট্টাচার্য 

এনআরসি ইস্যুকে সামনে রেখে দলীয় কর্মীদের সংবিধান রক্ষার দায়িত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র। শনিবার বিধান ভবনে পালিত হয় প্রদেশ কংগ্রেসের ১৩৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এই উপলক্ষে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রের নেতৃত্বে কংগ্রেস কর্মীরা বিধান ভবন থেকে মৌলালি মোড় পর্যন্ত মিছিল করেন। মিছিলের ব্যানারে বড় আকারে লেখা ছিল, 'সেভ কনস্টিটিউশন, সেভ ইন্ডিয়া।' এর ঠিক নীচেই লেখা, 'সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট অ্যাক্ট'-এর ওপর ক্রশ চিহ্ন দিয়ে, তাঁরা যে এই আইন বাতিলের দাবি করছেন, সেকথা বোঝানোর চেষ্টা করেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব। 

মিছিলে উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেসের রাজ্যসভার  সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য। মিছিল শেষে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র দলীয় কর্মীদের দলের ১৩৪ বছরের রাজনৈতিক উত্তরাধিকার এর কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, 'স্বাধীনতা সংগ্রামের দীর্ঘ লড়াইয়ের উত্তরাধিকার বহন করছে কংগ্রেস। আগামী দিনেও কংগ্রেস কর্মীদের দেশ এবং সংবিধান রক্ষার ক্ষেত্রে আপোষহীন লড়াই চালাতে হবে।' কেন্দ্রের ভূমিকার সমালোচনা করে এদিন বিধান ভবনে গান্ধিজির ছবিতে মাল্যদানও করেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব। 

এদিনই লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা তথা মুর্শিদাবাদের সাংসদ অধীর চৌধুরী, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে, কেন্দ্রীয় সরকারকে 'বর্ষসেরা জোকার' বলে কটাক্ষ করেন। অধীর চৌধুরী বলেন, 'নরেন্দ্র মোদি বলছেন যে ২০১৪ সালের পর থেকে দেশে এনআরসি নিয়ে কোনও আলোচনাই হয়নি। দেশে কোনও ডিটেনশন ক্যাম্প নেই। মোদির এই মিথ্যে কথার তীব্র প্রতিবাদ করেছেন আমাদের নেতা রাহুল গান্ধি। আমি বিজেপি নেতাদের বলছি, বিতর্কে আসুন। তাহলেই প্রমাণ হয়ে যাবে কে মিথ্যে বলছে, রাহুল গান্ধি না, নরেন্দ্র মোদি? প্রমাণ হয়ে যাবে, এনডিএ সরকার আসলে বর্ষসেরা জোকার।'

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only