সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

মোদি-অমিত শাহের সৌজন্যে দেশ দেউলিয়া হয়ে গিয়েছে : বিমান বসু


এম এ হাকিম, বনগাঁ : অমিত শাহ ও নরেন্দ্র মোদির সৌজন্যে দেশ দেউলিয়া হয়ে গিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন, বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু। আজ সোমবার বিকেলে  উত্তর ২৪ পরগণার সীমান্ত শহর বনগাঁয় টাউন হল ময়দানে এনআরসি বিরোধী এক সভায় বক্তব্য রাখার সময় তিনি ওই মন্তব্য করেন।   

বিমান বাবু বলেন, ‘দেশে চাকরির নিরাপত্তা নেই, মানুষ চাকরি হারাচ্ছেন। বেকাররা কোনও কাজ পাচ্ছেন না। একেরপর এক কলকারখানা বন্ধ হচ্ছে। নতুন কলকারখানা গড়ে উঠছে না। যতই আমাদের প্রধানমন্ত্রী ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ স্লোগান দিন না কেন ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ আমরা কেউ দেখতে পাচ্ছি না। আমাদের দেশ বর্তমানে অমিত শাহ ও নরেন্দ্র মোদীর সৌজন্যে দেউলিয়া হয়ে গিয়েছে! আমাদের বৈদেশিক মুদ্রায় টান পড়েছে। রিজার্ভ  ব্যাঙ্কে যে পরিমাণ অর্থ জমা রাখতে হয় তা নেই। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নর এব্যাপারে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।’

বিমানবাবু দেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাস উল্লেখ করে বলেন, ‘দেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় এই বঙ্গ প্রদেশ কুরবানি দিয়েছে, অত্যাচার সহ্য  করেছে, মৃত্যু যন্ত্রণা সহ্য করেছে। বঙ্গ প্রদেশের মানুষ স্বাধীনতা সংগ্রামে বীর যোদ্ধা হিসেবে কাজ করেছে, তাঁরা ছিলেন বীর বিল্পবী স্বাধীনতা সংগ্রামী। আর যারা স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেনি, বিজেপির তখন জন্ম হয়নি, তখন জন্ম হয়েছিল আরএসএসের। রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের নির্দেশ ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণ না করার এবং ইংরেজকে সাহায্য করার। সেজন্য রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের একজন নেতা সাভারকর স্বাধীনতা সংগ্রামীদের সঙ্গে গ্রেফতার হয়েছিলেন। গ্রেফতার হয়ে তিনি ছিলেন আন্দামান সেলুলার জেলে। সেখান থেকে তিনি চিঠি লিখে মুচলেকা দিয়ে বলেন, আমি যা করেছি ভুল করেছি। মুচলেকা দিয়ে বলেন, আমি এরপর সমস্ত বিষয়ে সাহায্য করব, সহযোগিতা করব। এভাবে তিনি মুক্ত হয়েছিলেন। সেই সাভারকরকে ওরা ওদের বড় নেতা বলে মনে করে।’    
   
সভায় যোগ দেওয়ার আগে এক সংবাদ সম্মেলনে নাগরিকত্ব আইন প্রসঙ্গে বিমান বাবু বলেন, ‘এই বিষয়ে আমাদের অবস্থান খুব স্পষ্ট। আমরা ধর্ম, বর্ণ, জাতি ও ভাষার ভিত্তিতে নাগরিকত্ব আইন হোক তা চাই না।’ 
বনগাঁয় প্রস্তাবিত ডিটেনশন ক্যাম্প প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এখানে ডিটেনশন ক্যাম্পের জমি দেখা হয়েছিল। কিন্তু গভর্নমেন্ট অব ইন্ডিয়া ‘নাকি’ বলেছে যে এটি বাংলাদেশের নিকটবর্তী সেজন্য জমি অন্য জায়গায় দেখতে হবে। সেই জমি দেখার কাজ চলছে। ওই জমি দেখার কাজ করছে রাজ্য সরকার।’ 
এদিন বনগাঁ শহরে ওই সভায় কংগ্রেসের নেতারাও বক্তব্য রাখেন এবং পরে এনআরসি বিরোধী এক মিছিলে উভয়পক্ষের কর্মী-সমর্থকরা শামিল হন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only