শুক্রবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২০

নিয়মের মারপ্যাঁচে স্থগিত ৪ ধর্ষকের ফাঁসি

সব ঠিকঠাক থাকলে শনিবার সকাল ছটায় ফাঁসিতে ঝোলার কথা ছিল চারজনের (পবন গুপ্ত, মুকেশ সিং, অক্ষয় সিং, বিনয় শর্মা)। কিন্তু নিয়মের গ্যাঁড়াকলে দিল্লি কোর্টের নির্দেশে ফাঁসি অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে গেল। রাষ্ট্রপতির কাছে দু’জনের প্রাণভিক্ষার আর্জি ঝুলছে। আরেকজন এখনও আর্জি জানানি– জানাবেন। এ জন্যই শনিবারের ফাঁসি রদ হল বলে মনে করছে ওয়াকিফহাল মহল। তবে নির্ভয়ার মা এর তীব্র বিরোধিতা করে বলেছেন, ‘ওই ধর্ষক ও খুনিদের বেঁচে থাকার কোনও অধিকার নেই। তবু গড়িমসি করে ওদের বাঁচিয়ে রাখা হচ্ছে। ধর্ষকদের আইনজীবী আমাকে চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেছে– ওদের ফাঁসি হতে দেবে না। আমি হাল ছাড়ব না। সরকারকে ওদের ফাঁসি কার্যকর করতেই হবে।’ আমি হার মানব না বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন নির্ভয়ার মা। 

এর আগে রাষ্ট্রপতির কাছে দোষী মুকেশ সিংহের প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ হয়েছে। তবে শেষ চেষ্টা হিসেবে ধর্ষক পবন গুপ্ত শুক্রবার ফের সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করে তার বয়স বিবেচনার জন্য। ২০১২-এর ধর্ষণের ঘটনার সময় সে ‘নাবালক’ ছিল বলে সাজা কমানোর আর্জি জানায়। কিন্তু শীর্ষ কোর্ট আবেদন খারিজ করে দেয়। তবে এর পরেও সে রাষ্ট্র পতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানাতে পারে। তবে এ দিন যে বিষয়টি দেখে দিল্লি আদালতের বিচারক ফাঁসির নির্দেশ কার্যকর করার ক্ষেত্রে স্থগিতাদেশ দিয়েছেন– সেটা হল রাষ্ট্র পতির কাছে বিনয়ের প্রাণভিক্ষার আর্জি। বিনয়ের প্রাণভিক্ষার আর্জির প্রত্যুত্তরে রাষ্ট্রপতি এখনও কিছু জানাননি। আজ রাষ্ট্র পতি তাঁর সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেও নিয়ম অনুযায়ী ফাঁসি কার্যকর করার জন্য ১৪দিন অপেক্ষা করতে হবে। তিহার জেল সুপার এই বিষয়টি আদালতে বিচারককে তার রিপোর্টে জানান। ফলে বিচারক এই সিদ্ধান্ত নেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই ভাবে আইনের ফাঁকফোকর খুঁজে চলার খেলা আগেও খেলেছে দোষীরা। তাদেরকে যৌন হেনস্থা করা হচ্ছে তিহার জেলের ভেতরে বলে অভিযোগও করেছিল তারা। এর আগে আর এক দোষী অক্ষয় সুপ্রিম কোর্টে ফাঁসির সাজা মকুবের জন্য কিউরেটিভ পিটিশন দেয়। শীর্ষ আদালত তা-ও খারিজ করে দিয়েছে। তবে তার সামনে খোলা থাকছে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানানোর সুযোগ। শুক্রবার দিল্লির পাতিয়ালা কোর্টের রায়ের ফলে তারা আরও সময় পেয়ে গেল। একমাত্র মুকেশের সমস্ত সুযোগ নষ্ট হয়ে গেছে। কিন্তু একই অপরাধের জন্য আলাদা দিনে ফাঁসি দেওয়া যাবে না। একইদিনে ফাঁসি কার্যকর করতে হবে। সে জন্য আইনের মারপ্যাঁচে আটকে যাচ্ছে নির্ভয়ার ধর্ষকদের ফাঁসি।          

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only