বৃহস্পতিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২০

বাংলাদেশে বসেই পাওয়া যাচ্ছে, ভারতীয় ভোটার কার্ড, পাসপোর্ট! দাবি তসলিমার

পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক : বাংলাদেশের ইসলাম বিদ্বেষী বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন দাবি করেছেন, বাংলাদেশে বসেই পাওয়া যাচ্ছে, ভারতীয় ভোটার কার্ড, পাসপোর্ট, আধার কার্ড। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি ওই মন্তব্য করেছেন।  
আজ বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে প্রকাশ, তসলিমা বলেছেন, নাগরিকত্বের জন্য কয়েক হাজার কোটি টাকা খরচ করছে মোদি সরকার। অথচ, এখানে এত কিছু করার প্রয়োজনই নেই। কারণ, বাংলাদেশি হিন্দুরা এমনিতেই ভারতীয় কার্ড পেয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘বছর বছর টেম্পোরারি রেসিডেন্স পারমিট পেতে আমার জান বেরিয়ে যায়, আর দিব্যি বাংলাদেশের ঘরে বসে মানুষ পেয়ে যেতে পারে ভারতের আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, এমন কী পাসপোর্টও। বলি, নাগরিকত্বের হাজার কোটি টাকা অন্য কোনও জরুরি খাতে খরচ করলে কি ভালো হয় না?’  

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক পোষ্টে তসলিমা আরও লিখেছেন, ‘বাংলাদেশে আমার এক পরিচিত হিন্দুর কাছে আছে ভারতের আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, রেশন কার্ড। সে কিন্তু ভারতে কখনও আসেনি। জিজ্ঞেস করেছিলাম, এ কী করে সম্ভব? বললো, শুধু আমার নয়, অনেকেরই আছে। ভারতের পাসপোর্টও আছে। বললাম, ভারতে না গিয়েই? মাথা নাড়লো, হ্যাঁ না গিয়েই। বাংলাদেশে বসে এসব কী করে পেয়েছেন? উত্তর পেলাম, লোক আছে, টাকা দিলেই পাওয়া যায়।’

ভারতে নয়া নাগরিকত্ব আইন সিএএ/‘ক্যা’-এর বিরোধিতায় যখন বিভিন্ন রাজ্যের মানুষ ক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে তখন তসলিমা নাসরিন চাঞ্চল্যকর ও গুরুত্বপূর্ণ ওই দাবি করলেন। 
ভারতের নয়া আইনে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ধর্মীয় নির্যাতনের ফলে ১৯৮৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এদেশে আসা ধর্মীয় সংখ্যালঘু হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, খ্রিস্টান, পার্শিদের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্য সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বা (সিএএ/‘ক্যা’) তৈরি করেছে। ওই আইনে মুসলিমদের কোনও উল্লেখ না থাকায় এবং ‘ধর্মনিরপেক্ষ’ রাষ্ট্রে এভাবে নির্দিষ্ট ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়ার ব্যবস্থা হওয়ায় বিভিন্ন মহল থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করা হয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only