সোমবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২০

বেলাগাম দিলীপ ঘোষকে সামলাতে টুইট কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র, শুরু নতুন বিতর্ক



চিন্ময় ভট্টাচার্য 

দু'দিন আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে রাজভবনের বৈঠকে, দেরিতে পৌঁছনোয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে প্রকাশ্যেই রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের কটাক্ষ শুনতে হয়েছিল। বাবুলকে প্রকাশ্যেই দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, 'বাবুলদা দিল্লিতেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে নেবেন।' সোমবার ফের প্রকাশ্যে এল কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় এবং রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের দ্বন্দ্ব। যার জেরে খোলাখুলি দিলীপ ঘোষকে 'দায়িত্বজ্ঞানহীন' বলে সমালোচনা করলেন বাবুল। 

রবিবারই নদিয়ার জনসভায় বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেছিলেন, 'যাঁরা সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করছে, তাঁদের উত্তরপ্রদেশের মতো গুলি করে মারা উচিত।' মেদিনীপুরের সাংসদের এই মন্তব্যের বিরুদ্ধেই এদিন তোপ দাগেন আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তিনি সরাসরি টুইট করেছেন, 'দিলীপদা দায়িত্বজ্ঞানহীনের মতো কথা বলেছেন।' বাবুল লিখেছেন, 'দিলীপ ঘোষ যা বলেছেন, তার সঙ্গে বিজেপির কোনও সম্পর্ক নেই। তিনি যা বলেছেন, সবটাই তাঁর কল্পনাপ্রসূত।' কেন্দ্রীয় পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী আরও লিখেছেন, 'উত্তরপ্রদেশ বা অসম- কোথাও এই ধরনের ঘটনা ঘটেনি।'

নদিয়ায় একটি জনসভায় রবিবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন দিলীপ। নাগরিকত্ব (সংশোধন) আইনের প্রতিবাদের নামে গত ডিসেম্বর মাসে পশ্চিমবঙ্গে সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করা হয়। বিশেষ করে ট্রেন পোড়ানো হয়, প্ল্যাটফর্মে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। তার পরেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যেপাধ্যায় 'লাঠিচার্জের ও গুলি করার নির্দেশ' না-দেওয়ার জন্যই তাঁকে নিশানা করেন দিলীপ ঘোষ। এখানেই থামেননি রাজ্য বিজেপি সভাপতি। মেদিনীপুরের সাংসদ বলেন, 'এসব কি তাদের বাপের সম্পত্তি? করদাতাদের অর্থে তৈরি এইসব সরকারি সম্পত্তি তারা নষ্ট করে কী ভাবে!' তিনি বলেন, 'এইসব দেশবিরোধীদের উপর গুলি চালিয়ে ঠিক কাজই করেছে উত্তরপ্রদেশ, অসম ও কর্নাটক সরকার।'

এর আগেও বাবুল-দিলীপ কাজিয়া দেখেছিল বাংলার রাজনীতি। গতবছর দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর নরেন্দ্র মোদী যখন মেদিনীপুর কলেজিয়েট ময়দানে এসেছিলেন, সেদিনও দেখা গিয়েছিল মঞ্চের নীচে প্রকাশ্যে বিতণ্ডায় জড়িয়েছিলেন বাবুল-দিলীপ। এদিন ফের একবার সামনে এল দুই সাংসদের কাজিয়া। 

এই ঘটনায় পরে সাংবাদিক বৈঠক করে বাবুল বলেন, 'আমার মনে হয়েছে যে দিলীপদা যা বলেছেন, সেটা সত্য নয়। যোগী আদিত্যনাথ অনেককে আটক করেছেন। বিক্ষোভ সামলাতে তো এই রাজ্যের পুলিশও গুলি চালিয়েছে। তো সেই ব্যাপারে তো কোনও কথা হয় না।' একথা বললেও বিজেপিতে যে অন্তর্দ্বন্দ্ব রয়েছে, এদিন সেকথাও স্বীকার করে নেন বাবুল। বলেন, 'একটা বড় দলে মতানৈক্য থাকতেই পারে।' এই পরিস্থিতিতে বাবুল-দিলীপ দ্বন্দ্ব কোনদিকে মোড় নেয়, এখন সেটাই দেখার অপেক্ষায় রাজ্য বিজেপি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only