বৃহস্পতিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২০

ধর্মীয় কারণে অত্যাচারিত হওয়া মানুষদের বাঁচাতেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন করা হয়েছে : রবীশ কুমার

পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক :  সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন সিএএ/‘ক্যা’ এবং জাতীয় নাগরিকপঞ্জি এনআরসি ইস্যুতে কেন্দ্রীয় সরকার দেশে ও বিদেশে সমালোচিত হওয়ার পরে এবার বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র রবীশ কুমার জানালেন ‘ধর্মীয় কারণে অত্যাচারিত হওয়া মানুষদের বাঁচাতেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন করা হয়েছে। এরফলে আমাদের দেশের সংবিধানের মূল পরিকাঠামোয় কোনও পরিবর্তন হয়নি।’ আজ বৃহস্পতিবার দিল্লিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি ওই মন্তব্য করেছেন। 

রবীশ কুমার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘বিভিন্ন দেশে থাকা দূতাবাসগুলোকে  এনআরসি ও সিএএ/‘ক্যা’  সম্পর্কে ভারতের বক্তব্য স্পষ্ট করে জানানো হয়েছিল। এরপরেই আমাদের রাষ্ট্রদূতরা সেখানকার প্রশাসনকে এই দু’টি বিষয়ে ভারতের অবস্থান স্পষ্ট করেছে। বিস্তারিত আলোচনার পরে দু’টি   ইস্যুকেই ভারতের ‘একান্ত অভ্যন্তরীণ বিষয়’ বলে মেনে নিয়েছে বিশ্বের প্রায় সব দেশ। কারণ তারা বুঝতে পেরেছে যে এরফলে আমাদের দেশের সংবিধানের মূল পরিকাঠামোয় কোনও পরিবর্তন হয়নি। শুধুমাত্র ধর্মের কারণে অত্যাচারিত হওয়া মানুষদের বাঁচাতেই এই আইন করা হয়েছে।’
রবীশ কুমার আরও বলেন, ‘সিএএ এবং এনআরসি’র উদ্দেশ্য, অন্য  দেশগুলোতে বিপদে পড়া সংখ্যালঘুদের পাশে থাকা। এই দু’টি আইনই তাঁদের স্বার্থে।’ 

এদিকে, সিএএ এবং এনআরসি ইস্যুতে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভের জেরে বাতিল হওয়া ভারত-জাপান বৈঠকও শিগগিরি হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র। যদিও ওই বৈঠকের দিনক্ষণ এখনও ঠিক হয়নি বলে তিনি জানান।
এদিকে, ‘সিএএ’-এর প্রতিবাদে আজ বিজেপিশাসিত অসমের নলবাড়ি জেলায় মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোওয়ালের কুশপুতুল পুড়িয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। 

অন্যদিকে, আজই কর্নাটকে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ‘সিএএ’  বিরোধী আন্দোলনে মদদ দেওয়ার জন্য কংগ্রেসকে দায়ী করে ‘পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের উপরে যেসব অত্যাচার হয়, তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখানো হলে উচিত কাজ হতো’ বলে মন্তব্য করেছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only