মঙ্গলবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২০

বনধ রুখতে কোমর বেঁধে নামল রাজ্য পরিবহন দফতর

-ফাইল চিত্র
পুবের কলম প্রতিবেদক:  কেন্দ্র-বিরোধী আন্দোলনে রাজ্য সরকারের সমর্থন আছে। কিন্তু বন্‌ধে নেই। তাই, বাম ও কংগ্রেসের বিভিন্ন সংগঠনের ডাকা বুধবারের ভারত বন্‌ধে জনজীবন স্বাভাবিক রাখতে  সোমবারই পুলিশ-প্রশাসনকে সব রকম ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন  রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই মতো রাজ্যে সব কিছু স্বাভাবিক থাকবে বলে জানায় নবান্ন।

অন্যদিকে ধর্মঘটের দিন সব সরকারি কর্মীর হাজিরা নিশ্চিত করতে প্রতি বারের মতো  বুধবারও গোটা রাজ্য জুড়েই বাস, ট্যাক্সি, অটো মিলবে বলে মঙ্গলবার জানিয়ে দিল রাজ্য সরকার। এছাড়া অতিরিক্ত ৫০০ সরকারি বাস থাকবে বলে জানানো হয়েছে রাজ্য পরিবহন দফতর থেকে। সোমবারই রাজ্য পরিবহণ দফতর বৈঠক করেছে বেসরকারি বাস-মিনিবাস, ট্যাক্সি, অ্যাপ ক্যাব এবং অটো ইউনিয়নগুলির সঙ্গে। সেখানে তাদের প্রত্যেককে রাস্তায় যানবাহন নামানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যথাযথ নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকবে বলেও জানানো হয়েছে পরিবহণ দফতরের তরফ থেকে।

ধর্মঘট মোকাবিলায় সোমবারই সমস্ত বেসরকারি বাস মালিক অ্যাসোসিয়েশনকে ডেকে কথা বলেছেন রাজ্য পরিবহন কার্তারা। ধর্মঘটের দিন অশান্তির আশঙ্কায় ১ কোটি ৩ লক্ষ টাকা বিমা করানো হয়েছে। একই সঙ্গে তিন সরকারি পরিবহণ নিগমও তাদের হাতে থাকা সমস্ত বাস রাস্তায় নামাবে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পরিবহণ নিগম হাওড়া, ধর্মতলা ও শ্যামবাজার থেকে বিশেষ বাস চালাবে। 

বাসের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে বেহালা ও খিদিরপুর থেকে। বেশি করে বাস চালানো হবে হাওড়া থেকে যাদবপুরের মধ্যেও। পরিবহণ নিগমের হাতে থাকা যে সমস্ত বাস রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতিদিন ডিপোতে থাকে সেগুলিকেও রাস্তায় নামানো হচ্ছে।

শিয়ালদহ ও হাওড়া স্টেশনেও থাকবে ট্যাক্সি। যদিও এ আই টি ইউ সি ও সিটু তাদের ট্যাক্সি নামাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। যদিও রাজ্যের দাবি তাতে অসুবিধা হবে না। কারণ হাওড়া স্টেশন চত্বরে তাদের বাস পর্যাপ্ত থাকবে ভোর পাঁচটা থেকে। এছাড়াও একাধিক পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে পরিবহন দফতর থেকে। 

যেমন, বনধ রুখতে রাজ্য পরিবহণ নিগম চালাবে ১১৫০ টি বাস। সাধারণ দিনে তারা বাস চালায় ৯০০টি। দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগম চালাবে ৮২৬টি বাস। অন্য দিন তারা ৬৯২ টি বাস চালায়। উত্তরবঙ্গ পরিবহণ নিগম বাস চালাবে ৬৫৫টি। অন্য দিনে চলে ৬০৫টি বাস।

যে সমস্ত বাস রাস্তায় নামবে, সেগুলি বিমার আওতায় আনা হয়েছে। সর্বাধিক ৬ লক্ষ টাকা পর্যন্ত তারা বিমা পাবেন। অন্যদিকে শহরের বিভিন্ন প্রান্তে থাকবে অ্যাপ ক্যাবও। অ্যাপ ক্যাব যাতে সারচার্জ বেশি না নেয় তার দিকে নজরও রাখবে রাজ্য সরকার। অটো ইউনিয়নের তরফ থেকে অবশ্য জানিয়ে দেওয়া হয়েছে শহরে তাদের সমস্ত অটোই রাস্তায় নামবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only