বুধবার, ১ জানুয়ারী, ২০২০

সিএএ-বিরোধী আন্দোলন অব্যাহত, ছুটি বাড়ল আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ে

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাতে গিয়ে যোগীর পুলিশের হাতে রক্তাক্ত হয় আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। গত ১৫ ডিসেম্বর রাতে বিক্ষোভ চলাকালীন পুলিশ ক্যাম্পাসে ঢুকে মারধর করে ছাত্রদের। কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়। এমনকী গুলিও চলে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর পরই ছুটি ঘোষণা করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ে। ৬ জানুয়ারি ক্যাম্পাস খোলার কথা ছিল। কিন্তু দেশজুড়ে সিএএ-বিরোধী অসন্তোষ এখনও অব্যাহত। আলিগড়ের পড়ুয়ারাও বিভিন্ন জায়গায় প্রতিবাদ চালিয়ে যাচ্ছেন। পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে শীতকালীন ছুটি বাড়িয়ে দিল আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ । 

বুধবার এএমইউ-এর উপাচার্য তারিক মনসুরের সভাপতিত্বে ডিন, অধ্যক্ষ ও কার্যনির্বাহী কমিটি সদস্যদের একটি জরুরি বৈঠক হয়। সেই বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে– উত্তপ্ত পরিস্থিতির কথা ভেবে পড়ুয়া ও স্টাফদের শীতকালীন ছুটি আরও বাড়ানো হবে। ডিসেম্বরে যে পরীক্ষাগুলি অনুষ্ঠিত হতে পারেনি– সেগুলি পরে নেওয়া হবে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এএমইউতে ছাত্রছাত্রী পড়তে আসে। বাংলা থেকেও বহু ছেলেমেয়ে সেখানে পড়তে যায়। সবার উদ্দেশে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবেদন জানিয়েছে– বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পূর্বে যেন তারা ক্যাম্পাসে না আসে। যখন পঠন-পাঠন শুরু হবে– তখনই হস্টেল খোলা হবে। ছুটি কতদিন পর্যন্ত চলবে– তা এ দিন জানানো হয়নি। সূত্রের খবর, পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এজন্য এ দিন আলিগড়ের ওয়েবসাইটে যে নোটিশ দেওয়া হয়েছে– সেখানে ছাত্রদের অনুরোধ করা হয়েছে– তারা যেন নিযমিত ওয়েবসাইট ভিজিট করে। এতে ছুটি শেষের বিজ্ঞপ্তি বা অন্য কোনও বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়াদের জানাতে পারবে তারা।  

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only