শুক্রবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২০

বিশ্বের চোখে ধুলো দিতেই কাশ্মীরে ‘গাইডেড ট্যুর’ : সরদার আমজাদ আলী


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক :   কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা, সাবেক এমপি ও কোলকাতা হাইকোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী সরদার আমজাদ আলী বলেছেন, কাশ্মীর ইস্যুতে  বিশ্বের চোখে ধুলো দিতেই ‘গাইডেড ট্যুর’ করানো হচ্ছে। জম্মু-কাশ্মীরে ১৫ দেশের কূটনীতিকদের সফর প্রসঙ্গে ‘পুবের কলম’ প্রতিবেদককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি ওই মন্তব্য করেন। 
গতকাল (বৃহস্পতিবার) দু’দিনের সফরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ ১৫ দেশের কূটনীতিকরা জম্মু-কাশ্মীরে যান। তাঁরা সেখানকার বর্তমান পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেছেন। 
এপ্রসঙ্গে কংগ্রেস নেতা সরদার আমজাদ আলী বলেন, ‘বিশ্বের চোখে ধুলো দেওয়ার জন্য এবং অসত্য উদ্ঘাটন করার জন্য, সত্যকে চাপা দেওয়ার জন্য গাইডেড ট্যুরের অনুমতি দিচ্ছে সরকার। এরফলে জম্মু-কাশ্মীরের বর্তমান যে অবস্থা তার স্বাভাবিকতা প্রমাণ করে না। অস্বাভাবিকতাই প্রমাণ করে। কেন্দ্রীয় সরকারের একটা অত্যন্ত অভিসন্ধিমূলক উদ্দেশ্য রয়েছে। বিদেশি নাগরিক ও বিদেশি প্রতিনিধিদের কাছে রাজ্যের পরিস্থিতিকে অসত্যভাবে উপস্থাপন করার জন্য এই ‘ট্যুর’ করানো হচ্ছে।’ 
তিনি বলেন, ‘বিদেশি প্রতিনিধিদের  যাওয়ার জন্য অনুমতি দেওয়া হতে পারে অথচ দেশের প্রতিনিধিরা জম্মু-কাশ্মীরে যেতে গেলে আদালতের অনুমতি নিয়ে যেতে হয়! এর মধ্যে এই সরকারের অসৎ উদ্দেশ্য আছে। জম্মু-কাশ্মীরের অভ্যন্তরীণ অবস্থা এবং সেখানকার বিরোধীদলের নেতা-নেত্রীদের দীর্ঘদিন ধরে অন্তরীন করে রাখা হয়েছে। সেখানে এখনও পর্যন্ত স্বাভাবিক অবস্থা নেই। সেখানে এখনও পর্যন্ত পুলিশি ঘেরাটোপে সমস্ত নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা চলছে। এসবের মধ্যে (বিদেশি কূটনীতিকদের) ‘গাইডেড ট্যুর’ অর্থাৎ সরকারি প্রতিনিধি তাঁদেরকে যেখানে যেখানে নিয়ে যাবে দেখানোর জন্য তাঁরা সেখানে যাবেন।
তিনি বলেন, ‘এরআগে দেশের প্রতিনিধিদের কাশ্মীরে যাওয়ার অনুমতি দেয়নি সরকার। সেখানে দেশের প্রতিনিধিদের যাওয়ার জন্য সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ নিয়ে তবে যেতে  হয়েছে! সিপিএমের মহাসচিব সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ নিয়ে সেখানকার সিপিএম বিধায়ক ইউসুফ তারিগামির সঙ্গে দেখা করতে পেরেছেন। তারিগামিকে অন্তরীন করে বন্দি করে রাখা হয়েছিল। তিনি অসুস্থ ছিলেন, তাঁর চিকিৎসার কোনও ব্যবস্থা হচ্ছে কি না, খোঁজখবর নিতে চেয়েছিলেন ইয়েচুরি।’
সরদার আমজাদ আলী বলেন, ‘দেশের নেতা ও এমপিদের জম্মু-কাশ্মীরে  যাতায়াতের জন্য সুপ্রিম কোর্টের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে যেতে হয়। এমনকী গুলামনবী আজাদকেও (জম্মু-কাশ্মীরের  সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও বর্তমান এমপি) সুপ্রিম কোর্টের অনুমতি নিয়ে কাশ্মীরে যেতে হয়েছিল। এরআগে জম্মু-কাশ্মীরে ঢোকার চেষ্টা  করলে রাজ্য থেকে তাঁকে ফেরত পাঠানো হয়েছিল’ বলেও কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা সরদার আমজাদ আলী মন্তব্য করেন।
এদিকে, প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে আগেই বিদেশি কূটনীতিকদের সফরকে ‘গাইডেড ট্যুর’ বলে অভিহিত করা হলেও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব রবীশ কুমার তা নাকচ করে দিয়েছেন। রবীশ কুমার বলেছেন, ‘কাশ্মীরের জনজীবন যে স্বাভাবিক হচ্ছে, সে কাজে প্রশাসন যে ধাপে ধাপে পদক্ষেপ গ্রহণ করছে, বিশ্বকে তা দেখাতেই এই সফর।’ ১৫ জন  রাষ্ট্রদূতের সফর প্রসঙ্গে রবীশ বলেন, কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন বিদেশি দূতেরা। স্থানীয় মানুষ ও গণমাধ্যমের সঙ্গেও তাঁরা কথা বলেছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only