রবিবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সুন্দরবনের সন্দেশখালি ব্লকে বিজেপির বড় ভাঙ্গন, এনআরসি বিরোধী মিছিলে হাঁটলেন বিজেপির দলত্যাগী নেতা কর্মীরা

পুবের কলম, ওয়েব ডেস্ক: বসিরহাট  মহকুমার সুন্দরবনের সন্দেশখালি ব্লকে বিজেপির  বড় ভাঙ্গন। রবিবার  সরবেড়িয়া বাজার এলাকায় সন্দেশখালির মনিপুর  অঞ্চল থেকে বিজেপির অঞ্চল সভাপতি অসীম মন্ডল ও কোরাকাটি অঞ্চল যুব সভাপতি  কল্যাণ মন্ডল এবং  স্থানীয়  নেতা সহ প্রায় ছয়'শো জন বিজেপি কর্মী সমর্থক তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন।  তাদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ও বিধানসভার  মুখ্য সচেতক নির্মল ঘোষ, জেলা পরিষদের শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ ফিরোজ কামাল গাজী, সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শেখ শাহাজান, বিধায়ক সুকুমার মাহাতো ও দেবেশ মন্ডল, শিবপ্রসাদ  হাজরা সহ বিশিষ্ট নেতারা।

পাশাপাশি সরবেড়িয়া থেকে রাজবাড়ী পর্যন্ত  বাসন্তী  হাইওয়েতে প্রায় তিন কিলোমিটার এনআরসি বিরোধী মিছিলে  পা মেলালেন তারা।  বিজেপি নেতা অসীম মন্ডল বলেন, যেভাবে জামিয়া মিল্লিয়া ও শাহীনবাগে আন্দোলনকারীদের উপরে হিন্দু মহাসভার গুন্ডারা গুলি চালানো তা মানুষের মনের মধ্যে আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করেছে। তার বিরুদ্ধে   আমরা। 

পশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে এনআরসি নিয়ে প্রতিদিন পথে নামছেন সেই আন্দোলনকে সমর্থন করি। তাছাড়া রাজ্যে যেভাবে উন্নয়ন হচ্ছে আমরা তা মেনেে নিয়়ে বিজেপি দল ত্যাগ করে তৃণমূলে যোগদান করলাম। এদিন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, আমার দপ্তর এখনো কেন্দ্রের কাছে সাড়ে চার হাজার কোটি টাকা পায় সেটা দেইনি। দিল্লি জামিয়া ও শাহীনবাগে ছাত্রদের উপর হিন্দু মহাসভার নেতাদের উস্কানিতে গুলি চালিয়েছে। 

এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন ,এসব বাংলায় হবে না। মানুষ প্রতিরোধ করবে। এখানে ওইসব হয় না। মানুষ জবাব দেবে।  বিজেপির সব জায়গায় ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। সন্দেশখালি থেকে সূচনা হলো। মানুষ উন্নয়নের শরিক হতে চায় এরা। আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি নেজাট কালিনগর নদীর উপরে  সেতুর  প্রথম পর্যায়ে কাজের সূচনা হবে। 

জলঙ্গি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের দল করিনি। বিজেপি কংগ্রেস সিপিএম তিন ভাই মিলে এই ঘটনা ঘটিয়েছে । এনআর, সিএএ, এনপিআরের বিরুদ্ধে এই জেলায় দু'লক্ষ প্রচার লিফলেট ছাপিয়ে মানুষের বাড়ি বাড়ি যাব। মানুষকে সঙ্গে নিয়ে আমাদের এই আন্দোলন চলবে। একুশ সালে বিধানসভা নির্বাচনে এই জেলায় তেত্রিশটি বিধানসভাই আমরা দখল করব। বিজেপি এখান থেকে একটি সিটও পাবে না।

বাজেট প্রসঙ্গে  তিনি আরো বলেন, কেন্দ্রের  বাজেটে ১৩০ কোটি মানুষকে  ভণ্ডামি করেছে সরকার ।  দেশ কোন দিকে যাচ্ছে কেউ বুঝতে পারছে না।  এলআইসি, আইডিবিআই বেসরকারিকরণ হচ্ছে। মানুষের সঞ্চিত অর্থ সুকৌশলে লুট করার চেষ্টা চলছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only