মঙ্গলবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

‘যাঁরা গান্ধিকে অপমান করেন, তাঁরা রাবণের সন্তান’, সংসদে বিজেপি সাংসদকে তুলোধনা অধীরের

শীর্ষ নেতৃত্বের চাপ সত্ত্বেও নিজের বিতর্কিত মন্তব্যের পরও ক্ষমা চাইলেন না বিজেপি সাংসদ অনন্তকুমার হেগড়ে। বরং তাঁর মন্তব্য– তিনি মহাত্মা গান্ধির নাম উচ্চারণ করেননি। এমনকী কোনও রাজনৈতিক দলের নামও উল্লেখ করেননি। সাংসদের মন্তব্যের জেরে তুমুল শোরগোল সংসদে। কংগ্রেস সাংসদ অধীররঞ্জন চৌধুরী বলেন– ‘যাঁরা গান্ধিকে অপমান করেন– তাঁরা রাবণের সন্তান’।

মহাত্মা গান্ধির নেতৃত্বে দেশের স্বাধীনতা আন্দোলনকে ‘বড় নাটক’ বলেছিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনন্তকুমার হেগড়ে। তাঁর এই মন্তব্যের জেরে বেজায় অস্বস্তিতে পড়ে যায় গেরুয়া শিবির। সূত্রের খবর– দলের অস্বস্তি এতোটাই বেড়ে যায় যে সাংসদকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার নির্দেশ দেন প্রথম সারির নেতারা। এমন পরিস্থিতিতেও ক্ষমা চাওয়া তো দূর বরং পাল্টা তাঁর মন্তব্য– তিনি মহাত্মা গান্ধির নাম বা কোনও রাজনৈতিক দলের নাম উল্লেখ করেননি। সংবাদসংস্থা এএনআইকে তিনি বলেন– সংবাদমাধ্যমে যা দেখাচ্ছে তা মিথ্যে। আমি আমার বক্তব্য থেকে সরছি না। আমি কখনই কোনও রাজনৈতিক দল বা গান্ধির নাম উল্লেখ করিনি’। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন– ‘আমি যদি গান্ধি অথবা (জওহরলাল) নেহরু কিংবা কোনও স্বাধীনতা সংগ্রামীর নাম উল্লেখ করে থাকি– সেটা আমাকে দেখানো হোক’।

সাংসদের এই মন্তব্যে মঙ্গলবার সংসদে তুমুল শোরগোল হয়। লোকসভায় অনন্তকুমারের মন্তব্যের সমালোচনা করে কংগ্রেস সাংসদ অধীররঞ্জন চৌধুরী বলেন– ‘যাঁরা গান্ধিকে অপমান করেন– তাঁরা রাবণের সন্তান’। এর পাশাপাশি তিনি বলেন– ‘স্বাধীনতা আন্দোলন হয়েছিল অহিংস পথে। সেটা হয় মহাত্মা গান্ধির নীতি মেনেই। বিশ্বে যিনি পূজিত– সেই গান্ধিকে এখন তাঁর দেশেই অপমানিত হতে হচ্ছে। যারা এটা করছেন– তারা রাবণের সন্তান। তারা একজন রামভক্তকে অপমান করেছেন’। 
এদিকে বিজেপি সূত্রে খবর– অনন্তকুমারের মন্তব্যে দল মোটেই খুশি নয়। মন্তব্যটি গ্রহণযোগ্য নয় বলে দলের তরফে তীব্র অসন্তোষের কথা জানিয়ে দেওয়া হয় প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকেও। যদিও এতো কিছুর পরও নাছোড় অনন্তকুমারের মন্তব্য– গান্ধি বা কোনও রাজনৈতিক দলের কথা উল্লেখ করেননি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only