সোমবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

শিশু সন্তানকে বুকে আঁকড়ে পলাশির ধর্ণায় মহিলারা

পুবের কলম, ওয়েব ডেস্ক: দক্ষিণ থেকে উত্তরে  মাটির বুক চিরে চলে গেছে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক। জাতীয় সড়কের পাশেই নদিয়ার পলাশি ফুলবাগান মোড়েই তৈরি হয়েছে নেতাজি সুভাষ মঞ্চ। মাস ছয়েকের সন্তান জারিন তাসনিম কে কোলে নিয়ে ঠাঁই বসে রয়েছেন বছর পঁচিশ -ত্রিশের গৃহবধূ। মুখে আতঙ্কের ছাপ। স্বামীর সঙ্গে এসেছেন ধর্ণায় যোগ দিতে। এনআরসি, সিএএ ও এনপিআরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অসন্তোষের আঁচ যে থেমে নেই তা বোঝা যায় গ্রামের গৃহবধূদের দেখলে। জিজ্ঞাসা করতেই সন্তানকে সামলে গৃহবধূ পাপিয়া সুলতানা জানালেন, এনআরসি, ক্যা ও এনপিআরের বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছি। যতদিন প্রত্যাহার না করবে সরকার আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো। 

শাহিনবাগের ধর্ণাকে অনুসরণ করেই বিভিন্ন স্থানে শুরু হয়েছে ধর্ণা। বাদ যায়নি পলাশি। এই ধর্ণা মঞ্চ থেকে মাত্র আড়াই-তিন কিমি দূরে পলাশির প্রান্তর। এই ঐতিহাসিক পলাশির মাটিতে ধর্ণা করা দরকার ছিলই বলে মনে করছে আন্দোলনকারীরা। 

ধর্ণা মঞ্চের সদস্য কামালউদ্দিন জানান, কেন্দ্রের নীতির বিরুদ্ধে আমাদের অনির্দিষ্টকাল ধর্ণা চলবে। পলাশি তো বটেই আশেপাশের এলাকা এমনকি মুর্শিদাবাদ থেকেও অনেকেই অনেকে আসছেন বলে দাবী। 

সন্তান কোলে নিয়ে গৃহবধূ রাণী খাতুন জানান,আমরা কোনভাবেই  জোর করে চাপিয়ে দেওয়া আইন মানবো না। ' দেশের কেন্দ্রের বিরুদ্ধে মলিনা বিবি, সুফিয়া বিবিদের মতো গ্রামের সাধারণ মহিলারাও আন্দোলনে সামিল হয়েছেন। তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন পুরুষরাও। ধর্ণায় আসছেন বাড়ির পুরুষরাও। বাড়ির কাজ সেরে টানা দশ দিন ধরে শুরু হয়েছে পলাশির ধর্ণা। সন্তানকে বুকে নিয়ে চলছে তাদের লড়াই।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only