রবিবার, ৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

কেঁদে ফেললেন লৌহপুরুষ! কিন্তু কেন?

পুবের কলম, নয়াদিল্লি: সদ্য মুক্তি পেয়েছে বলিউড মুভি ‘শিকারা’। মুভিটির কেউ করছেন প্রশংসা। আবার অনেকেই সমালোচনায় সরব। তবে সেই মুভি দেখতে বসে আবেগতাড়িত হয়ে পড়লেন বিজেপির মার্গদর্শক লালকৃষ্ণ আডবাণী। এতোটাই আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন যে, চোখের জল ধরে রাখতে পারলেন না বর্ষীয়ান এই নেতা। 
হঠাৎই আবেগপ্রবণ লৌহপুরুষ লালকৃষ্ণ আডবাণী। দুই চোখের কোণে জল। কিন্তু কেন? প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন অধরা লৌহপুরুষের। গেরুয়া শিবিরের কাছেও রীতিমতো উপেক্ষিত। তাহলে কি এইসব কারণেই হঠাৎ আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন তিনি? না, তেমন কোনও কারণ নয়। আসলে তাঁর চোখে জল এনে দিয়েছেন পরিচালক বিধু বিনোদ চোপড়ার নতুন মুভি ‘শিকারা’। পরিস্থিতি এমন হয় যে, নবতিপর বিজেপি নেতার কান্না থামাতে চেয়ার ছেড়ে উঠে আসতে হয় পরিচালককে। পরিচালক তাঁর ট্যুইটার হ্যান্ডেলে গোটা ঘটনার ভিডিওটি শেয়ার করেছেন।
মুক্তির আগে থেকেই আলোচনার কেন্দ্রে ‘শিকারা’­ দ্য আনটোল্ড স্টোরি অফ কাশ্মিরী পন্ডিতস।  গত শতাব্দীর নয়ের দশকের গোড়ায় কাশ্মিরী পণ্ডিতদের উপত্যকা থেকে বিতারণের পটভূমিতে তৈরি হয় এই মুভি। দিল্লিতে এই মুভির স্পেশাল স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা করেছিলেন পরিচালক ও প্রযোজকরা। তাতে আমন্ত্রণ পান লালকৃষ্ণ আডবানী। সিনেমার শেষে কান্নায় ভেঙে পড়েন লৌহপুরুষ। 
ইতিমধ্যেই এই মুভিকে বয়কটের ডাক দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ, কাশ্মিরী পণ্ডিতদের দুঃখ-যন্ত্রণার নামে কমার্শিয়াল মুভি বানিয়েছেন পরিচালক।এমনকী কাশ্মিরী পণ্ডিতদের একাংশও মুভি বয়কটের ডাক দিয়েছে। তাঁদের অভিযোগ, কাশ্মিরী পণ্ডিতদের আসল কষ্ট দেখানো হয়নি। পরিবর্তে হিন্দু গণহত্যা দেখিয়ে বাণিজ্যকরণ করতে চেয়েছেন পরিচালক।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only