বুধবার, ২৫ মার্চ, ২০২০

বই পড়ুন, ঘরে থাকুন - লক ডাউন সফল করতে যুব সমাজের অভিনব উদ্যোগ



শুভজিৎ নস্কর
প্রাথমিকভাবে দেশ ও রাজ্যের কিছু কিছু অঞ্চলে করোনা প্রতিরোধে লকডাউন জারি করা হলেও কাল মধ্যরাত্রি থেকে কার্যত গোটা ভারতবর্ষে লকডাউন জারি করা হয়েছে। কিন্তু বাঙ্গালী কবেই বা ঘরবন্দী থাকতে ভালোবেসেছে? কথায় বলে চায়ের কাপে তুফান তুলে সকালের আড্ডা না দিয়ে বাঙালির দিন শুরু হয় না। যতই ঘরকুনো জাত হোক, বাঙালি কবি কিন্তু বলে গেছেন "থাকবো নাকো বদ্ধ ঘরে"  তাই জগৎ দেখা হয়ে না উঠুক, অন্তত নিজের পারাটা প্রতিদিন চষে বেড়াতে না পারলে বাঙালির পেটের ভাত কোনদিনই হজম হয় না। তাই বিশ্বব্যাপী ত্রাস সৃষ্টিকারী করোনা র প্রভাবে গোটা বিশ্ব যখন থরহরিকম্প, গোটা দেশ যখন লকডাউনের অধীনে, বাঙালির একাংশ কিন্তু এখনও উদাসীন। লকডাউন জারি করার পরেও খোদ কলকাতা শহরেই এখনও লোকজনকে দলবেঁধে আড্ডা দিতে বের হতে দেখা যাচ্ছে। এই অবস্থায় মানুষকে ঘরমুখী করতে এক অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে কিছু তরুণ-তরুণী।
বিশ্বায়নের ছোঁয়া যত আমাদের গ্রাস করেছে, আমরা ততই বই বিমুখ হতে থেকেছি। আমাদের দৈনন্দিন জীবনের কর্মব্যস্ততা আর আধুনিক গণমাধ্যমের দাপটে বই কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়েছিল। মনিদিপা, সন্দীপন, রাতুলের মত তরুণ-তরুণীরা তাই আধুনিকতাকে হাতিয়ার করে নতুন করে মানুষের মননে বইকে পৌঁছে দেবার চেষ্টা করছে। লকডাউন শুরু হওয়ার পরেই সন্দীপন ও তূর্য শুরু করেছে তাদের পিডিএফ লাইব্রেরী, যার মূল স্লোগান হল " বই পড়ুন, বাড়িতে থাকুন" মূলত লকডাউন কে কার্যকরী করে তোলবার জন্যই তাদের এই উদ্যোগ। বিশেষ সাক্ষাৎকারে সন্দীপন জানিয়েছেন, এটাকে পাগলামী বলতে পারেন কিন্তু বইয়ের লোভ দেখিয়ে যদি আমরা দশটা লোককে বাড়িতে আটকে রাখতে পারি তাহলে একটু পাগলামী না হয় করলাম। এইযুদ্ধটা তো আমাদের ঘরে বসেই লড়তে হবে। আবার, মনিদিপা, অর্কপ্রভ, রাতুলদের উদ্যোগের নাম "হোয়াটসঅ্যাপ লাইব্রেরী"। দুটি গ্রুপই মূলত সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে মানুষের কাছে পিডিএফ বই ( ই পুস্তক) তুলে দিচ্ছে।
তাদের মতে, প্রতিটি মানুষের পকেটে এখন এন্ড্রয়েড ফোন। আর সেই আধুনিক যন্ত্রের হাত ধরেই বই নতুন করে মানুষের মননে পৌঁছে যাক। প্রসঙ্গত, হোয়াটসঅ্যাপ লাইব্রেরী বেশ কিছু দিনের পুরনো একটি গ্রুপ যারা অনেকদিন ধরেই এইভাবে কাজ করে চলেছে। এই কাজের জন্য তারা বহুবার প্রশংসা ও পুরস্কার লাভ করেছেন। হোয়াটসঅ্যাপ লাইব্রেরীর পক্ষ থেকে মনিদিপা জানান, তারা মূলত হার্ড কপিই ছড়িয়ে দেন মানুষের মধ্যে কিন্তু এই চরম অবস্থায় কিছুদিনের জন্য মানুষকে পিডিএফ দিচ্ছেন তারা। এই অচলাবস্থা কেটে গেলে তারা আবার হার্ডকপি মানুষকে দেবেন, কোন নতুন বইয়ের পিডিএফ তারা দেন না এবং বই দেয়ার ক্ষেত্রেও স্বত্বাধিকারী দের সাথে কথা বলে আইনানুগ পদ্ধতি মেনে চলেন। মূলত সকলেই এই লকডাউন পরিস্থিতিতে মানুষ যখন গৃহবন্দী থেকে দিশেহারা হয়ে উঠেছে রীতিমত, তখন মানুষকে নতুন করে বইমুখী করার মাধ্যমে ঘরমুখী করে তোলার এই উদ্যোগকে অনেকেই সাধুবাদ জানিয়েছেন। জনকল্যাণে এই লকডাউন সফল করুন এবং নতুন করে বইমুখী হয়ে উঠুন।

পিডিএফ লাইব্রেরীর সাথে যোগাযোগের মাধ্যম:
সন্দীপন - 90025 67190

হোয়াটসঅ্যাপ লাইব্রেরী সাথে যোগাযোগের মাধ্যম:

মনিদিপা: 9836232708
রাতুল: 7688000567

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only