শনিবার, ৭ মার্চ, ২০২০

পুলওয়ামায় হামলার বিস্ফোরক কেনা হয়েছিল অ্যামাজন থেকে!

শ্রীনগর, ৭ মার্চ­: এক বছরের বেশি হয়ে গেল। তবুও  পুলওয়ামা হামলার স্মৃতি এখনও টাটকা জনমানসে। এরইমধ্যে প্রকাশ্যে এল জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার বিস্ফোরক দাবি। পুলওয়ামাকাণ্ডে ধৃত ২জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। গোয়েন্দাদের দাবি, অনলাইন শপিং সাইট অ্যামাজন থেকে বিস্ফোরক তৈরির সরঞ্জাম ও রাসায়নিক কিনেছিল ধৃতদের মধ্যে একজন।

টাকা থাকলে অনলাইন শপিং সাইটে পাওয়া যায় না, এমন দ্রব্য নেই। এমনকী টাকা থাকলে আপনি পাবেন বিস্ফোরকও! শুক্রবার এনআইএ গ্রেফতার করে ২ সন্দেহভাজনকে। তাদেরকে জেরা করে অফিসাররা জানতে পারেন, পুলওয়ামাতে হামলার জন্য অনলাইনে বিস্ফোরক কিনেছিল ধৃত। তদন্তকারী অফিসারদের দাবি, ধৃত ওয়েজুল ইসলাম স্বীকার করেছে যে অ্যামাজন অ্যাপে তার অনলাইন অ্যাকাউন্ট ছিল। সেই অ্যাকাউন্ট থেকেই আইইডি বিস্ফোরক বানানোর রাসায়নিক ও ব্যাটারি সহ অন্যান্য সরঞ্জাম কিনেছিল। এই কাজ সে করেছিল পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদের নির্দেশে। 

জেরাতে সে আরও জানিয়েছে, জঙ্গিদের ডেরায় সে নিজেই সবকিছু পৌছে দিত। তদন্তকারীদের দাবি, ফরেনসিক তদন্তে প্রমাণ হয়েছে বিস্ফোরণের জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট, নাইট্রো গ্লিসারিন ও আরডিএক্স। ধৃত আরও এক সন্দেহভাজন মুহাম্মদ আব্বাস রাথার অনেকদিন থেকে জইশ জঙ্গিদের হয়ে কাজ করছিল। ২০১৮-র এপ্রিল মে নাগাদ জইশ জঙ্গিগোষ্ঠীর এক সদস্য কাশ্মীরে আসে। তাকে রাথার নিজের বাড়িতে আশ্রয় দেয়। এছাড়া পুলওয়ামা হামলার আগে আত্মঘাতী হামলাকারীদেরও নিজের বাড়িতে থাকতে দেয় রাথার। 

গত বছর ১৪ ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামায় সিআরপিএফ-এর কনভয়ে জঙ্গি হানায় শহিদ হন ৪০জন জওয়ান। এই হামলায় জড়িত সন্দেহে গত শুক্রবার শ্রীনগর থেকে ২ সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা। এই নিয়ে মোট ৫জনকে গ্রেফতার করল এনআইএ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only