মঙ্গলবার, ১৭ মার্চ, ২০২০

ধর্ষণে বাধা পেয়ে কিশোরীর নাক কাটল যুবক

পুবের কলম, লখনউ: উত্তরপ্রদেশে নির্মম অত্যাচারের শিকার এক নাবালিকা। ধর্ষণে বাধা পেয়ে কিশোরীর নাক কাটল অভিযুক্ত। ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য লক্ষিমপুর জেলার শারদা নগর এলাকায়। পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হলেও, এখনও অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে পারেনি তারা।
হায়দরাবাদে পশু চিকিৎসককে ধর্ষণ করে জ্যান্ত পুড়িয়ে মারার ঘটনা আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। শুধু হায়দরাবাদ নয়। উত্তরপ্রদেশেও নারী নির্যাতনের বহু ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। কখনও নির্যাতনের পর জ্যান্ত পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। কখনও আবার সাক্ষীদের প্রমাণ লোপাট করতে নানান ছক কষা হয়। এবারও প্রকাশ্যে এল প্রায় একই রকম একটি ঘটনা। ধর্ষণে বাধা দিতে গিয়ে গুরুতর জখম হলেন নির্যাতিতা এক কিশোরী। 
ঠিক কী হয়েছে ঘটনাটি? সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, আর্থিক সঙ্গতি খারাপ হওয়ায় কিশোরী অনেকদিন আগেই স্কুলছুট। বাবা-মা দিনমজুর। তারা দু’জনই সকালে কাজের জন্য চলে যান। ফলে সারাদিন বাড়িতে একাই থাকত ১৬ বছরের কিশোরী। সেই একাকিত্বের সুযোগ নেয় অভিযুক্ত গৌতম রাইদাস। প্রতিদিনের মতো এদিনও কাজের জন্য বেরিয়ে যান তার বাবা-মা। অভিযোগ, জোর করে ঘরে ঢোকার চেষ্টা করেন গৌতম রাইদাস। বাধা দেয় কিশোরী। ঘরে ঢুকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে তাকে বাধা দেয় সে। অভিযোগ, তাতে বাধা পেয়েই ধারালো ছুরি দিয়ে নাক কেটে নেওয়া হয় কিশোরীর। বাবা-মা ফিরলে তাদের সব কথা খুলে জানায় ওই কিশোরী। কোতয়ালি পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ দায়ের করে তার পরিবার।
পুলিশ আধিকারিক অজয় মিশ্র জানান, অভিযুক্তকে চিহ্নিত করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই গ্রেফতার করা হবে। বর্তমানে নির্যাতিতা কিশোরী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সুস্থ হলেই বয়ান রেকর্ড করা হবে বলেও জানান মিশ্র।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only