মঙ্গলবার, ১৭ মার্চ, ২০২০

করোনা আতঙ্কে কেরলে কাজ বন্ধ, আটকে হাজার হাজার শ্রমিক

পুবের কলম প্রতিবেদকঃ কেরলের মাল্লাপুরম, পালঘাট, ত্রিশূর, এরনাকুলাম জেলার বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছেন বাঙালি শ্রমিকরা। সবমিলিয়ে প্রায় ১৫ লক্ষ বাঙালি শ্রমজীবী মানুষ রয়েছে। করোনা ভাইরাস আতঙ্কে এই সমস্ত শ্রমিক এখন নানা অসুবিধার মধ্যে রয়েছেন বলে জানান আস্থা ফাউন্ডেশনের সভাপতি ইদ্রিশ আলি মণ্ডল। তিনি বাঙালি শ্রমিকদের নিয়ে সচেতনতামূলক কাজ করেন। তিনি জানান, দেশের যে কয়েকটি প্রধান শহরে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে তার মধ্যে কেরল অন্যতম। ফলে বাঙালি শ্রমিকদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। 
তিনি বলেন, বাঙালি শ্রমিকরা একটি বড় হলঘরে ৫০-৬০ জন করে থাকেন। আবার ছোট ঘর হলেও ৬-৭ জন গাদাগাদি করে থাকেন। এর ফলে রোগ বালাই বেশি হয়। বাঙালি শ্রমিকদের সতর্কতার জন্য ওই সমস্ত পঞ্চায়েত, পুরসভা থেকে সচেতনার বার্তা দেওয়া হয়েছে। ইদ্রিশ আলি বলেন, শ্রমিকরা এক সঙ্গে থাকার কারণে বিভিন্ন অসুবিধার সম্মুখীন হয়। নানা ধরনের রোগ হয়। তা থেকে বাঁচাতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। 
তিনি জানান, করোনা আতঙ্কে সাধারণ মানুষের বাড়িতে কাজ পাচ্ছে না শ্রমিকরা। তারা কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। বড় বড় প্রজেক্টও বন্ধ, ফলে নানা অসুবিধার মধ্যে দিনযাপন করছে বাঙালি শ্রমিকরা। আইসোলেশন ওয়ার্ডে যাওয়ার ভয়ে কেউ কেরল ছেড়ে আসতে ভয় পাচ্ছেন। আস্থা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বাঙালি শ্রমিকদের বাসায় গিয়ে সচেতনতার বার্তা দিচ্ছেন। কোথাও আবার গুজব ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে, বাঙালি শ্রমিকদের কেরলে থাকা হবে না। ইদ্রিশ আলি জানান, সরকারের পক্ষ থেকে এইরকম কোনও ঘোষণা দেওয়া হয়নি। কিছু মানুষ আতঙ্ক ছড়াচ্ছে বাঙালিদের মধ্যে। কারও কোনও ভয় নেই। তিনি বলেন, বর্তমানে কাজ বন্ধ, আটকে পড়ে রয়েছে হাজার হাজার বাঙালি। আস্থা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে হাতে সাবান, ঘর পরিষ্কার, বিছানাপত্র নিয়মিত পরিষ্কারের কথা বলা হচ্ছে। ‘নিজে সুরক্ষিত থাকলে দেশ সুরক্ষিত থাকবে’--ই বার্তা দেওয়া হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only