বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ, ২০২০

বেলেঘাটা থেকে পালিয়ে খড়্গপুরে লুকিয়ে সন্দেহভাজন সংক্রামিত ব্যক্তি, হন্যে হয়ে খুঁজে উদ্ধার পুলিশের




পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: দাগি আসামি নয়, সন্দেহভাজন এক সংক্রামিত ব্যক্তি বেলেঘাটা হাসপাতাল থেকে পালিয়ে ঘোরাফেরা করছে খড়গপুর শহরে-এই খবর পেয়ে তাকে খুঁজে বের করতে ঘাম ছুটে গেল খড়গপুর টাউন থানার পুলিশ ও পুর প্রশাসনের।ভারতীয় মহামারী প্রতিরোধ আইন অনুযায়ী পলাতক এই রোগী অবশ্য খুনের আসামির চাইতেও মারাত্মক ছিল, কারণ সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা।  তাকে খুঁজে বের করে ফের তুলে দেওয়া হলো স্বাস্থ্য দপ্তরের হাতে।

জানা গিয়েছে, খড়গপুর শহরের ভবানীপুর এলাকার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা এক যুবক সম্প্রতি জ্বর ও বুকে ব্যথা নিয়ে প্রথমে ভর্তি হয়েছেন খড়্গপুর মহকুমা হাসপাতালে।সেখান থেকে চিকিৎসকরা তাকে মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করেছিলেন।সেখানে ওই যুবকের অবস্থা সন্দেহজনক মনে হয় মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ থেকে ওই যুবককে পাঠানো হয়েছিল বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতাল তাকে নীলরতন হাসপাতালে পাঠায় বিভিন্ন লক্ষণ বিবেচনা করে। ১৭ মার্চ ওই ব্যক্তিকে নীলরতন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দেয় তিনি " স্ট্রং সাসপিসিয়ান অফ করোনা।"অর্থাৎ অতিমাত্রায় সন্দেহভাজন সংক্রামক। তাকে পুনরায় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতলে পাঠানো হয়।

গত মঙ্গলবার রেফার হওয়া ওই যুবক বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে না গিয়ে পরিবার সহ খড়্গপুরে তার নিজের বাড়িতে ফিরে আসেন বলে জানা যায়। এলাকার লোকজন তাকে ঘিরে সন্দেহ শুরু করে। তার রিপোর্ট দেখে হতবাক হয়ে যান সকলেই, আতঙ্ক ছড়িয়ে যায় সংক্রমণের।স্থানীয়রা উদ্যোগ নিয়ে তাকে খড়্গপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে ওই সংক্রান্ত ওয়ার্ড না থাকায় বেসরকারি নার্সিংহোমে নিয়ে যাওয়া হয় পুনরায়।

ইতিমধ্যে পুলিশের কাছে খবর পৌঁছে যায়-সন্দেহভাজন সংক্রামক বেলেঘাটাতে রেফার হওয়ার পরও সেখানে না গিয়ে টোটোতে করে ঘুরে বেড়াচ্ছে খড়গপুর শহরে। পুর প্রশাসন ও খড়গপুর টাউন থানার পুলিশ হন্যে হয়ে খোঁজ শুরু করে শহরজুড়ে।অনেক পরে খুঁজে বের করে তাকে পুনরায় রেফার করা হয় মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন পুলিশ ও আধিকারিকগন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only