বৃহস্পতিবার, ১৪ মে, ২০২০

ভবিষ্যতের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান মুলতবি রেখে ত্রাণ বিলি যাদৃশী ভাবনার, পাশে বাংলা সংস্কৃতি মঞ্চ


দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট:
 মহিলা পরিচালিত যাদৃশী ভাবনা গীতাঞ্জলি শিক্ষায়তন ও বাংলা সংস্কৃতি মঞ্চের যৌথ উদ্যোগে লক ডাউনের সময়ে দুঃস্থ অসহায়দের পাশে দাঁড়াতে নটকোনা সামগ্রী ও মাস্ক বিতরণ হলো বড়শাল পঞ্চায়েতের বড়শাল গ্রামে।
বর্ধিষ্ণু বড়শাল গ্রামে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের বাস।
এর আগেও লক ডাউনের সময়ে ব্যবসায়ী আনন্দ আগরওয়াল, বিশিষ্ট আইনজীবী কামাল হাসান এই গ্রামের মানুষের আহ্বানে দুঃস্থ মানুষের হাতে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দিয়েছেন। কিন্তু লক ডাউনের সময় সীমা বেড়ে যাওয়ায় মানুষের দুর্ভোগ বাড়ে। এই গ্রামে বহু ভ্যান চালক, পরিচারিকা, ভিক্ষুক, চটিদার সবজি বিক্রেতা, আঁটকে থাকা ভিন জেলার ফেরিওয়ালা, অটো, টোটো চালক, নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবার যাঁরা কর্মহীন হয়ে কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন, তাঁদের হাতে সামান্য নটকোনা সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়।
তার আগে প্রত্যেক আমন্ত্রিত ব্যক্তির হাতে স্যানিটাইজার দেওয়া হয়। তাঁদের মাস্ক পরিয়ে দেওয়া হয় এবং সামাজিক দূরত্ব বিধি বজায় রেখে সারিবদ্ধভাবে খড়ির গণ্ডির মধ্যে থেকে এক এক করে ত্রাণ তুলে দেওয়া হয়। বাংলা সংস্কৃতি মঞ্চের সামিরুল ইসলাম ও নিজামুদ্দিন সেখ জানান, তাঁরা পশ্চিম বঙ্গ ছাড়া রাজ্যের বাইরেও দুঃস্থ পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। মহিলা পরিচালিত যাদৃশী ভাবনা গীতাঞ্জলি শিক্ষায়তনের  কর্ণধার প্রিয়াঙ্কা মুখোপাধ্যায় বলেন, যাদৃশী ভাবনা গীতাঞ্জলি শিক্ষায়তন বছরের বিভিন্ন সময়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে থাকে। কিন্তু এই মুহূর্তে করোনা আবহে বহু মানুষ কর্মহীন, দুর্দশার শিকার। তাই আমরা আলোচনা করে ঠিক করি আগামীতে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বন্ধ করে তার খরচ বাবদ গচ্ছিত অর্থের বেশ কিছু অংশ ব্যয়ে সেই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াবো। এই মহতী কাজে আমাদের পাশে পেয়েছি বাংলা সংস্কৃতি মঞ্চ, কোলকাতাকে। তাঁদের সাধুবাদ, ধন্যবাদ জানাই। ধন্যবাদ জানাই যাদৃশী ভাবনা গীতাঞ্জলি শিক্ষায়তনের সকল সদস্যকে। এদিন আমরা কিছু নটকোনা সামগ্রী, মাস্ক বিতরণ করলাম বড়শাল গ্রাম ও কাজের তাগিদে আঁটকে থাকা ভিন জেলার ফেরিওয়ালা সহ বেশ কিছু অসহায় মানুষ জনকে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only