মঙ্গলবার, ৩০ জুন, ২০২০

বহিরাগতদের ডোমিসাইল সার্টিফিকেট কাশ্মীরে, তীব্র বিরোধিতা অ্যাডভোকেট ভীম সিংয়ের

জম্মু-কাশ্মীরের বহিরাগতদের ডোমিসাইল সার্টিফিকেট দেওয়া হবে, সরকারের এই সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা জানালেন সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র অ্যাডভোকেট অধ্যাপক ভীম সিং৷ তার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল প্যান্থারস পার্টিও এর নিন্দা জানিয়ে এ বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করার জন্য রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে সোমবার এক আবেদন করে৷ তাঁর বক্তব্য,  প্রকৃত কাশ্মীরিদের ইতিহাস, ঐতিহ্য,  সংহতি ও মৌলিক অধিকার বজায় রাখতে এই ব্যাপারটি বন্ধ করা জরুরি৷ 

ভীম সিংয়ের রাজনৈতিক দল এনপিপি এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও পরিকল্পনার জন্য কাশ্মীরের সমস্ত পলিটিকাল পার্টিগুলির একটি মিটিংয়েরও আয়োজন করেছে৷ অধ্যাপক সিং রাষ্ট্রপতি কোবিন্দের কাছে এক কড়া চিঠিতে জানিয়েছেন, নয়া ডোমিসাইল আইন জম্মু-কাশ্মীরের প্রকৃত বাসিন্দাদের অস্তিত্ব ও পরিচিতিকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে৷ কারো সঙ্গে কোনও আলোচনা না করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ কিছুদিন আগে গেজেটের মাধ্যমে জারি করা এই আইনে বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি যদি ন্যুনতম ১৫ বছর জম্মু-কাশ্মীরে বসবাস করে থাকেন, তবে তিনি সেখানকার স্থায়ী নাগরিক হয়ে যাবেন অর্থাৎ তাকে সেখানকার ডোমিসাইল বলে গণ্য করা হবে৷ গত বছরের ৫ আগস্ট কাশ্মীরে সংবিধানের ৩৭০ ও ৩৫ এ ধারা প্রত্যাহার করে কেন্দ্র৷ তার প্রায় আট মাসের মাথায় এই ডোমিসাইল নীতি নাগরিকত্বের সুবিধাপ্রাপ্তিতে সহজ করে দিয়েছে৷ 

এর ফলে কার্যত সুবিধা পাবে বহিরাগতরা৷ কারণ, মাত্র ১৫ বছরের বসবাসে ডোমিসাইল বলে গণ্য হলে অনেক বহিরাগতই এই সুবিধা পেয়ে যাবে৷ অধ্যাপক ভীম সিং সরকারের এই ঘোষণাকে 'স্বৈরাচারী ঘোষণা' বলে অভিহিত করেছেন৷ এটাকে কাশ্মীরের জনগণের পক্ষ থেকে কোনও অবস্থাতেই মেনে নেওয়া সম্ভব নয় বলে তিনি জানান৷ স্থায়ী নাগরিকত্ব নিয়ে কোনও কর্তৃপক্ষই এ হেন আইন তৈরি করতে পারে না৷ এমনকি আইনত জম্মু-কাশ্মীর বিধানসভাও এমন আইনকে অবৈধ ঘোষণা করতে পারে না৷ তাই নয়া ডোমিসাইল নীতি আইনের দৃষ্টিতেও অবৈধ বলে তিনি জানান৷

অ্যাডভোকেট ভীম সিং আরও জানান, বিশেষ সুবিধাযুক্ত ৩৭০ ধারা একটি স্টেট সাবজেক্ট৷ এটি জম্মু-কাশ্মীরের তৎকালীন শাসক মহারাজা হরি সিং স্বয়ং একটি রয়াল ডিক্রির (১৯২৭) মাধ্যমে এটি বলবৎ করেন৷ তিনি এটি করেছিলেন জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের গরিব চাষিদের জমির নিরাপত্তা যাতে সুনিশ্চিত থাকে এবং বহিরাগত ভূস্বামী ও বেনিয়াদের হাতে যেন এ-সব ভূমি পড়ে সে জন্য৷ স্থায়ী নাগরিকত্ব সংক্রান্ত সেই আইনই এতদিন চলে আসছে৷ বিজেপি সরকার ৩৭০ ধারা রদ ও নয়া ডোমিসাইল নীতি প্রণয়নের মাধ্যমে সেই প্রেক্ষাপটকে মুছে ফেলতে চাইছে৷

দেশের সংবিধান প্রণয়নের সময়েও জম্মু-কাশ্মীরের বাসিন্দাদের পরিচিতি সংরক্ষিত হয়৷ কাশ্মীরের নাগরিকত্ব সংক্রান্ত সমস্ত আইনই অক্ষত থাকবে ও কোনও বদল আনা যাবে না বলে সেখানে স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে৷ তারপরেও বিজেপি এমন নীতি কীভাবে প্রণয়ন করে, প্রশ্ন তুলছেন ভীম সিং৷ এটা খুবই দুঃখজনক যে, রাষ্ট্রপতির অধীনে থাকা বর্তমান শাসক নোটিশ জারি করেছে যে, স্থায়ী বাসিন্দাদের নিয়ে যে আইন রয়েছে তা আর তাদের মৌলিক অধিকার নয়৷ এই আইন কেউ পরিবর্তন করার অধিকার রাখে না বলে বারবার জোরের সঙ্গে বলেন অ্যাডভোকেট সিং৷

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only