শুক্রবার, ১৯ জুন, ২০২০

দিল্লি দাঙ্গার জড়িতদের নাম প্রকাশ 'স্পর্শকাতর' বিষয়, কোর্টে জানাল দিল্লি পুলিশ



পুবের কলম, ওয়েব ডেস্ক: ফেব্রুয়ারিতে ঘটা উত্তর-পূর্ব দিল্লি দাঙ্গাতে পরিকল্পিত ভাবে মুসলিম নিধনযজ্ঞ চালানো হয়েছিল৷ নিকাশিনালায় মিলেছিল লাশ৷ দু-দিনের দাঙ্গায় সরকারি হিসেবে মৃত্যু হয় ৫০ এর অধিক মানুষের৷ সেই দাঙ্গায় অভিযুক্তদের আড়াল করা হচ্ছে বলে প্রথম থেকেই অভিযোগ উঠছিল বিভিন্ন মহল থেকে৷ মঙ্গলবার দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, দিল্লি দাঙ্গায় জড়িত যাদের নাম এফ আই আরে রয়েছে, সেই তথ্য অত্যন্ত  'স্পর্শকাতর' তাই তাদের নাম তথ্য অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে আপলোড করা যাবে না৷ মঙ্গলবারই দিল্লি পুলিশ ব্যাপারে পাঁচ পাতার হলফনামা দিল্লি হাইকোর্টে জমা দেয়৷ 

পুলিশের আইনি সেল জানাচ্ছে, সচেতন ভাবেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে দাঙ্গায় জড়িতদের নাম প্রকাশ করা হবে না৷ দাঙ্গার অব্যবহিত পরেই অভিযোগ উঠছিল, বিজেপির নেতারা উসকানি দিয়ে এই দাঙ্গা শুরু করেন৷ পরে দিল্লির বিজেপি নেতা কিছু হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের বিরুদ্ধে (হিন্দু সেনা) অভিযোগ ওঠে, বাইরে থেকে লোক ভাড়া করে এনে দাঙ্গা করানোর৷ দিল্লি দাঙ্গায় পুলিশের ভূমিকা নিয়েও বারবার প্রশ্ন উঠেছে৷ হিংসা না থামিয়ে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে তারা৷ এফ আই আর করা হয়নি উসকানি দেওয়া বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে৷

এবার দিল্লি পুলিশের সদ্য এই মন্তব্যে ফের বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে৷ তাদের দাবি, অভিযোগকারীসাক্ষী অভিযুক্তদের নাম প্রকাশ না করার মাধ্যমে তারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার চেষ্টা করছে৷ পুলিশের এই হলফনামা বিচারপতি বিপিন সাঙ্ঘির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চের কাছে জমা দেওয়া হয়৷ সিপি আই এম নেতা বৃন্দা কারাতের করা এক আবেদনের ভিত্তিতে পুলিশ এই রিপোর্ট জমা দেয়৷ কারাত আরও দাবি জানিয়েছিলেন, ২৪ মার্চ থেকে লকডাউনের মধ্যে হিংসার অভিযোগে যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের নাম প্রকাশ করা হোক৷ পুলিশের জবাব, ধরনের পদক্ষেপ নিলে অভিযুক্তদের অধিকার ক্ষুণ্ণ হবে৷ 

বৃন্দা কারাত সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনামা উল্লেখ করে আবেদনে জানিয়েছিলেন, এফ আই আর করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওয়েবসাইটে তাদের তথ্য আপলোড করতে দিল্লি পুলিশ বাধ্য৷ দিল্লি পুলিশ পাল্টা জানায়, কারাত অভিযুক্ত নন, সাক্ষী বা অভিযোগকারীও নন৷ তাই তিনি দিল্লি দাঙ্গায় জড়িতদের নাম জিজ্ঞাসা করতে পারেন না৷ তবে পুলিশ সিল করা খামে দাঙ্গাকারীদের নাম কোর্টের কাছে পেশ করেছে৷ হাইকোর্ট রিপোর্টটি গ্রহণ করলেও কোনও নির্দেশ জারি করেনি৷ পরবর্তীতে মামলাটির ফের শুনানি হবে প্রধান বিচারপতির বেঞ্চেই৷


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only