শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০

জমিয়তের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি অসমের মুফতি খাইরুল ইসলাম আর নেই, শোক প্রকাশ সমাজের বিশিষ্টদের

যেতে হয় সব ছেড়ে যেতে হয়। আসা যাওয়ার এই নিয়মে সবাই বাঁধা। উত্তর-পূর্ব ভারতের বিশিষ্ট ইসলামি পণ্ডিত সর্বভারতীয় জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সহ সভাপতি তথা অসমের ধিং সমষ্টির এআইইউডিএফ বিধায়ক আলহাজ আমিনুল ইসলামের পিতা মুফতি খাইরুল ইসলাম মহান রবের ডাকে সাড়া দিয়ে চলে গেছেন। দীর্ঘদিন বাড়িতে অসুস্থ থাকার পর বৃহস্পতিবার সকাল ন’টা পঁয়তাল্লিশ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহেরাজেউন)। 

তাঁর মৃত্যুর খবর সবার প্রথমেই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে জানিয়ে দেন তাঁরই পুত্র বিধায়ক আমিনুল ইসলাম। মুফতি খাইরুল ইসলামের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই লোকে লোকারণ্য হয়ে ওঠে পৈতৃক বাড়ি। তাঁর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে আলেম সমাজ সহ পরিচিত মহলে। ভারত-বাংলাদেশে রয়েছেন এই আধ্যাত্মিক গুরুর অসংখ্য ভক্ত। সমাজ এক অমূল্য রত্নকে হারাল বলেও মন্তব্য করেছেন বহু বিশিষ্টজন। 

তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করে পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন সর্বভারতীয় জমিয়ত উলেমায়ে হিন্দের সভাপতি মওলানা সৈয়দ আরসাদ মাদানি, জেনারেল সেক্রেটারি মওলানা সৈয়দ মাহমুদ মাদানি, এআইইউডিএফ সুপ্রিমো ধুবড়ির সাংসদ মওলানা বদরুদ্দিন আজমল, উত্তর-পূর্ব ভারতের আমিরে শরিয়ত মওলানা ইউসুফ আলি, রাজ্য বিধানসভার উপাধ্যক্ষ আমিনুল হক লস্কর, অসম রাজ্য জমিয়তের সহ-সভাপতি দারুল উলুম বাশকান্দির প্রধান শায়েখ মওলানা ইয়াহইয়া, খানকায়ে মাদানির প্রধান তথা অসম জনসেবা পরিষদের চেয়ারম্যান শায়েখ মওলানা আহমদ সায়ীদ গোবিন্দপুরী, উত্তর-পূর্বাঞ্চল আহলে সুন্নত ওয়াল জামাতের মুখ্য উপদেষ্টা মওলানা সারিমুল হক লস্কর, প্রাক্তন মন্ত্রী সিদ্দেক আহমেদ, প্রাক্তন মন্ত্রী ও প্রবীণ কংগ্রেস নেতা আবু সালেহ নাজমুদ্দিন, আইনজীবী দাইয়ান হোসেন, আমসার কেন্দ্রীয় সভাপতি মওলানা ওয়াহিদুজ্জান সহ বহু রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক বিশিষ্টরা। অনেকে বলছেন, তাঁর মৃত্যুতে বিভিন্ন বিষয়ে তিনি জ্ঞান রাখতেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only