শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০২০

জার্মান রাজ্যের স্কুলে নিষিদ্ধ বোরকা-নিকাব


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: জার্মানির উয়েরতেমবার্গ রাজ্যের সমস্ত স্কুলে বোরকা ও নিকাব নিষিদ্ধ করা হয়েছে। উয়েরতেমবার্গ রাজ্য প্রশাসনের এমন বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নিয়ে ইতিমধ্যেই ক্ষোভ ছড়িেয়ছে মুসলিম সমাজে। জার্মান প্রশাসন জানিয়েছে,এখন থেকে রাজ্যের কোনও স্কুলেই বোরকা বা নিকাব পরে যাওয়া যাবে না। এমন কিছু পরা যাবে না, যাতে মুখ ঢেকে থাকে। আগে শিক্ষিকাদের জন্যও এই নিয়ম জারি করেছিল রাজ্যটি।

জার্মানির পশ্চিম প্রান্তের এই অঞ্চলটির শাসন ক্ষমতায় রয়েছে গ্রিন পার্টি। গত কয়েক মাস ধরেই ছাত্রীরা মুখ ঢেকে স্কুলে যেতে পারবে কি না, তা নিয়ে বিতর্ক চলছিল সেখানে। ঘটনার সূত্রপাত এক স্কুলছাত্রীর একটি মামলাকে ঘিরে। হামবুর্গ আদালতে বোরকা বা নিকাব পরার পক্ষে মামলা করেছিল সে। দীর্ঘ সওয়াল জবাবের পরে আদালত জানায় রাজ্যের স্কুল আইন অনুযায়ী মুখ ঢেকে স্কুলে যেতেই পারে ছাত্রীরা। 

কিন্তু রাজ্য যদি স্কুল আইন বদলে ফেলে, সেক্ষেত্রে নিয়মের পরিবর্তন হতে পারে। আদালতের এই রায়ের পরেই প্রশাসন স্কুল আইন বদলের তোড়জোড় শুরু করে। আইন বদল হলেও বিষয়টি নিয়ে বিস্তর বিতর্ক জারি রয়েছে। গ্রিন পার্টির একাংশের বক্তব্য, বোরকা বা নিকাব ব্যক্তি স্বাধীনতার পরিপন্থী। কোনও গণতান্ত্রিক দেশে মহিলাদের মুখ ঢাকতে বাধ্য করা যায় না। অধিকারের কথা ভেবেই এই ধরনের পোশাক নিষিদ্ধ করা উচিত। কোনও কোনও রাজনীতিবিদ জানিয়েছেন, শুধু উয়েতেমবার্গই নয়, গোটা জার্মানিতেই বোরকা এবং নিকাব বাতিল করা উচিত। আবার অন্যপক্ষের বক্তব্য– সকলেরই পোশাক নির্বাচনের অধিকার আছে। গণতান্ত্রিক দেশে সকলের ধর্মচর্চারও সমান অধিকার আছে। বোরকা বা নিকাব যেহেতু ধর্মীয় পোশাক, ফলে তা পরারও অধিকার সকলের রয়েছে। 



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only