শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০২০

চিনে নিষিদ্ধ হলেন যিশুও! ভাঙা হচ্ছে ক্রশ



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: এতদিন জিনপিং সরকার ছিল মুসলিম বিদ্বেষী। এবার তারা টার্গেট করেছে খ্রিস্টান সম্প্রদায়কেও। চিন সরকার নির্দেশ দিয়েছে, নির্দিষ্ট কয়েকটি প্রদেশের গির্জার ক্রশগুলোকে ভেঙে ফেলতে হবে,টাঙিয়ে রাখা যাবে না যিশুর ছবি। শুধু চার্চই নয়, খ্রিস্টানরা তাদের ঘরেও এখন থেকে আর যিশুর ছবি রাখতে পারবেন না। বেশ কয়েকটি প্রদেশের প্রশাসন যেমন, আনহুই, জিয়াংসু, হুবেই ও ঝেজিয়াংয়ে এমনই খ্রিস্টান বিরোধী নির্দেশনা জারি করেছে। 

সূত্রের খবর,এরই মধ্যে ওই সব প্রদেশের গির্জাগুলিতে রাখা ক্রশ নামিয়ে নষ্ট করে ফেলা হয়েছে। এই সকল প্রদেশর ছাড়াও শাংসি প্রদেশের খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের বাড়ি থেকে যিশুর ছবি সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তার বদলে চিনের কমিউনিস্ট নেতাদের ছবি রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যান্য ধর্মের ওপর এই রাষ্ট্রীয় আঘাতের নিন্দা শুরু হয়েছে সর্বত্র। খ্রিস্টান ও মুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর চিনের এমন বিদ্বেষী ও দখলদারি মনোভাব নিয়ে সরব হয়েছে বহু দেশ। আনহুই প্রদেশের একাধিক গির্জার ক্রশ ভেঙে ফেলা হয়েছে। প্রশাসনিক কর্মকর্তারা ক্রশ ভাঙতে এলে একাধিক খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী জড়ো হয়ে প্রতিবাদ জানান। তবে কোনও বাধাই মানেনি পুলিশ। ঝেজিয়াং প্রদেশের ইয়ঙ্গজিয়া এলাকায় ৭ জুলাই একই ঘটনা ঘটে।

প্রায় ১০০ জন প্রাদেশিক কর্মী গির্জা থেকে ক্রশ নামিয়ে ফেলে সেটিকে ভেঙে ফেলেন। সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, যেসব দরিদ্র বাসিন্দারা সরকারের পক্ষ থেকে সামাজিক কল্যাণ বাবদ আর্থিক সাহায্য পেয়ে থাকেন, তারা যিশুর আরাধনা করতে পারবেন না। তার বদলে মাও সেতুং ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের ছবি রাখতে হবে। একই রকম রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের শিকার চিনের সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়। জানা গেছে, কেবল ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে উইঘুর মুসলিমদের আটক করছে কমিউনিস্ট সরকার। চিনের এমন ঔদ্ধত্যপূর্ণ ও মানবিকতাহীন নির্দেশের সমালোচনায় সরব হয়েছে একাধিক মুসলিম ও খ্রিস্টান সংস্থা।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only