বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই, ২০২০

ঈদগাহের বিউটিফিকেশনের প্রকল্প রূপায়ন না করেই টাকা লোপাটের অভিযোগ


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: প্রকল্প রূপায়নের কাজ না করেই সাড়ে নয় লক্ষ টাকা লোপাটের অভিযোগ উঠল রতুয়া-২ পঞ্চায়েত সমিতির অন্তর্গত মহারাজপুর পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে।  প্রধানসহ সদস্য ও পঞ্চায়েত আধিকারিকদের বিরুদ্ধে লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই পঞ্চায়েত এলাকারই কয়েকজন বাসিন্দা। জেলার এসপি, ডিএম, ডিএনও ও বিডিওর কাছে অভিযোগের কপি জমা দেওয়া হয়েছে৷ অভিযোগের কপি পাঠানো হয়েছে  রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তরেও। অভিযোগ পেয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছেন রতুয়া-২ এর বিডিও সোমনাথ মান্না।

অভিযোগকারী আব্দুল বারি, আনুয়ার হোসেনরা অভিযোগ জানিয়েছেন, মহারাজপুর গ্রামপঞ্চায়েতের এলাহাবাদ গ্রামের ঈদগাহের বিউটিফিকেশনের জন্য একশো দিন প্রকল্পে পেভার ব্লকের তিনটি স্কিম ছিল।কিন্তু কোনো কাজ না করেই পঞ্চায়েত প্রধান আফসানা খাতুন, এলাহাবাদের সদস্য ইসমেতারা খাতুন, পঞ্চায়েতের এনএস সেক্রেটারি ও ইএ সবার  যোগসাজসে ওই প্রকল্পের ৯ লক্ষ ৬৩ হাজার ৪৩৮ টাকা পুরো লোপাট হয়ে গেছে। বিষয়টি জানাজানি হতেই এলাহাবাদ গ্রামবাসীদের মধ্যে সোরগোল পড়ে যায়।

এনিয়ে গ্রামবাসীরা চরমভাবে ক্ষুব্ধ পঞ্চায়েতের এহেন ভূমিকায়। গ্রামবাসীদের সাফ বক্তব্য কাজ না করেই কেন তিনটি প্রকল্পেরই টাকা তোলা হল তার জবাব দিতে হবে। দোষীদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে গণ আন্দোলনের পথে নামবেন বাসিন্দারা।

মহারাজপুর পঞ্চায়েত প্রধান আফসানা খাতুন এপ্রসঙ্গে জানান, ঈদগাহের বিউটিফিকশনের জন্য পেভার ব্লক আনা হয়েছে। রাস্তার সমস্যার জন্য সমস্ত মাল পাশের গ্রাম চিকনিতে জমা রয়েছে। তিনি আরো বলেন, গ্রামবাসীরা ঈদগাহের বদলে পেভার টাইলসের কাজ কবরস্থানের জানাযার নামাজ পড়ার জায়গায় করতে চাইছেন। তাই এই টালবাহানার দরুণ কাজ চালু হতে একটু দেরি হয়েছে। 

তবে কাজ না করেই প্রকল্পের টাকা তুলে নেওয়া হলো কেন এব্যাপারে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি প্রধান। রতুয়া-২ এর বিডিও সোমনাথ মান্না বলেন, কাজ না করে সত্যিই যদি স্কিমের টাকা তুলে নেওয়া হয় তাহলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only