বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই, ২০২০

গ্রেফতার মোস্ট ওয়ান্টেড ডন বিকাশ দুবে গ্রেফতারি নাকি আত্মসমর্পণ? ঘনাচ্ছে রহস্য

নয়াদিল্লি, ৯ জুলাই: 'ডন কো পাকাড় না মুস্কিল থা, পর না মুমকিন নেহি'। অবশেষে বড়সড় সাফল্য পেল উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। মধ্যপ্রদেশের উজ্জয়িনীর মহাকাল মন্দির চত্বর থেকে গ্রেফতার করা হয় কুখ্যাত মাফিয়া ডন বিকাশ দুবেকে। তবে গ্যাংস্টারকে পাকড়াও করার পরই দেখা দিয়েছে প্রশ্নচিহ্ন। অনেকেই বলছেন, এটা কি আদৌও গ্রেফতারি নাকি গ্রেফতারির নামে নাটক? এতদিন কাদের আশ্রয়েই বা ছিল গ্যাংস্টার? বিকাশের গ্রেফতারিতে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা।

৩ জুলাই। কানপুরের বিকরু গ্রামে ৮ পুলিশকর্মীকে নৃশংসভাবে খুন।তারপর থেকে ৬দিন ধরে গা ঢাকা দিয়েছিল বিকাশ। তার দুই সাগরেদকে এনকাউন্টারে খতম করা সম্ভব হলেও, বিকাশ অধরা। হরিয়ানার ফরিদাবাদের একটি হোটেলে রয়েছে বলে বুধবার পুলিশ খবর পায়। কিন্তু সে খবর আগেই পেয়ে যায় অপরাধ জগতের বেতাজ বাদশা বিকাশ দুবে।তাই পুলিশি হানার আগেই সেখান থেকে চম্পট দেয় সে। যদিও উজ্জয়িনীর মন্দির থেকে আর শেষ রক্ষা হল না। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ সূত্রে খবর, সেখানে তাকে চিনে ফেলে এক নিরাপত্তারক্ষী। কাল বিলম্ব না করে পুলিশ গ্রেফতার করে মোস্ট ওয়ান্টেড গ্যাংস্টারকে। জেরা করতেই সে নিজের পরিচয় স্বীকার করে ফেলে। জানায়, 'আমিই কানপুরের বিকাশ দুবে।' 

এদিকে বিকাশ দুবের এভাবে জনপ্রিয় একটি এলাকা থেকে গ্রেফতার হতেই রহস্য ঘণীভূত হচ্ছে। তাহলে কি বিকাশকে এনকাউন্টার থেকে বাঁচাতেই মহাকাল মন্দিরের মতো একটা ব্যস্ততম এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হল? অনেকেই দাবি করছেন, বিকাশই মহাকাল মন্দিরে যাওয়ার কথা পুলিশকে জানিয়েছিল। সেই খবরের ভিত্তিতেই তাকে ধরা হয়। প্রশ্ন উঠছে, যাকে রাজ্যে পুলিশ গরু খোঁজা করে খুঁজছে, তাকে পুলিশ ওই রকম একটি ব্যস্ততম এলাকা থেকে ধরে ফেলল? সে কেন দিনের ঝকঝকে আলোতে ব্যস্ততম এলাকাতেই বা গেল? লকডাউন আর হাই অ্যালার্ট উপেক্ষা করে উত্তরপ্রদেশের ফরিদাবাদ থেকে কীভাবে মধ্যপ্রদেশের উজ্জয়িনীতে চলে গেল? এতোটা পথ সে কী নিজেই গেল? পুলিশের সাহায্য ছাড়া সেটা কীভাবে সম্ভব? মহাকাল মন্দিরের চারিদিকে গ্যাংস্টারের ছবি লাগানো ছিল। ফটোগুলো সেখানে কে লাগাল? বিকাশকে ধরার ছবি কীভাবে সংবাদমাধ্যমের কাছে এল? তাহলে কি স্থানীয় সাংবাদিকের কাছে এই ধরনের কোনও খবর ছিল? সেইজন্যই কি অত দ্রুত সেখানে পৌঁছানো সম্ভব হল? ৬ দিন ধরে বিকাশকে কে লুকিয়ে থাকতে সাহায্য করল? এতোদিন পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে পালানোর পর বৃহস্পতিবার হঠাৎ 'আত্মসমর্পণ' কেন করতে চাইলেন বিকাশ ? সূত্রের দাবি, উত্তরপ্রদেশ পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে গত কয়েকদিনে বিকাশের পাঁচ ঘনিষ্ঠ শাগরেদ খতম হয়েছে। তাতেই সে ভয় পাচ্ছিল উত্তরপ্রদেশ পুলিশ তাকে ভুয়ো সংঘর্ষে মেরে ফেলবে। তাই প্রতিবেশি রাজ্যে এসে সে 'আত্মসমর্পন' করেছে।

তবে ঘটনা যাইহোক বিকাশ দুবের গ্রেফতারি যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যের পুলিশকে যে অত্যন্ত বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলে দিয়েছে, তাই নিয়ে  কোনও সন্দেহ নেই। বিশেষত এইদিনই যোগী সরকারকে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আক্রমণ করেছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধি। বিকাশ গ্রেফতার হওয়ার আগেই উত্তরপ্রদেশের বেহাল আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির কথা তুলে, কঠোর সমালোচনা করেন যোগী সরকারের। টুইট করে বলেন, সমগ্র দেশের মোট অবৈধ অস্ত্রের ৫৬ শতাংশই উত্তরপ্রদেশে রয়েছে। ২০১৬ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে রাজ্যে সাইবার অপরাধের মামলা বেড়েছে ১৩৮ শতাংশ। এই সব পরিসংখ্যান দিয়ে তিনি অভিযোগ করেন, 'উত্তরপ্রদেশ সরকার এই পরিসংখ্যানগুলিতে মনোযোগ দিয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার পরিবর্তে ঠাট্টা করার চেষ্টা করছে। অপরাধ কীভাবে কমবে?

এদিকে বিকাশকে জেরাতে মিলেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। ৮ পুলিশকর্মীকে হত্যার পর তাদের দেহ জ্বালিয়ে দেওয়ার ছক ছিল বিকাশ দুবের। কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি। এমনই দাবি উত্তরপ্রদেশ পুলিশের। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only