বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০

দল ও ক্ষতিগ্রস্তদের চাপে অভিযুক্তরা ফেরাচ্ছেন টাকা, পত্রপাঠ বরখাস্ত হচ্ছেন দোষীরা

পুবের কলম প্রতিবেদকঃ মগরাহাট­ আমফানে ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ নিয়ে লাগাতার অভিযোগের জেরে কড়া ব্যবস্থা নিয়েছে রাজ্যের শাসকদল। সেইমতো মঙ্গলবার দুপুরে মগরাহাটের গোকর্ণী পঞ্চায়েত এলাকার ঘটনায় অভিযুক্ত নেতা টাকা ফিরিয়ে দিয়েছেন। দলে থেকে কুকর্ম করার জন্য গ্রামবাসীদের কাছে ক্ষমাও চেয়ে নেন তিনি। দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত নেতাকে বরূাস্ত করেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

সম্প্রতি গোকর্ণী পঞ্চায়েতের এক সদস্যার স্বামী বিশ্বজিৎ দপ্তরির বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে, তিনি আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত দুই গ্রামবাসীর কাছ থেকে ক্ষতিপূরণবাবদ ২০ হাজার করে ৪০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ঘটনার কথা জানাজানি হতেই শুক্রবার সন্ধ্যায় গ্রামবাসীরা বিশ্বজিৎ দপ্তরিকে তৃণমূল দফতরে আটকে রেখে বিক্ষোভ দেূান। এরপর টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করেন বিশ্বজিৎ। পরে তাঁকে বিক্ষোভকারীদের হাত থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনা কানে যেতেই তৃণমূলের ব্লক স্তরের নেতারা দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছেন অভিযুক্তের বিরুদ্ধে। 

এ দিন গোকর্ণী পঞ্চায়েতের প্রধান গ্রামবাসীদের সামনে বিশ্বজিৎ দপ্তরির নেওয়া মোট ৪০ হাজার টাকা তুলে দেন প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত সুবিদ লস্কর ও আব্বাসউদ্দিন গাজির হাতে। পঞ্চায়েত প্রধান সফিরুল রহমান মোল্লা বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কড়া নির্দেশ দিয়েছেন, আমফানে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা যাতে ক্ষতিপূরণ হিসেবে সরকারি অর্থসাহায্য পান, সেব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে হবে। আমরা চাই প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা এই সুযোগ পান। বিশ্বজিৎ খুবই অন্যায় কাজ করেছেন। দল তাঁকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বরখাস্ত করেছে। আপনারা প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের খুঁজে বের করে ক্ষতিপূরণের জন্য দরূাস্ত করুন। তৃণমূল কংগ্রেস গরিবের পাশে আছে, খেটে খাওয়া মানুষের পাশে আছে।’ 

উল্লেখ্য, দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারীদের মধ্যে অধিকাংশই তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থক। দলের তরফে সদর্থক সিদ্ধান্ত পেয়ে গ্রামবাসীদের একাংশ এ দিন তৃণমূলের ঝান্ডা নিয়ে এলাকায় মিছিল বের করেন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only