শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০

স্বাধীনতার স্লোগান... চিনা আইনের বিরুদ্ধে পথে হংকংয়ের জনতা

পাল্টা হুমকি চিনের, ভুল পথে হাঁটবেন না 

ওয়াশিংটন, ৩ জুলাই: করোনার আবহে হংকংয়ে চিন অনুমোদিত নিরাপত্তা আইন নিয়ে রাজনীতির আগুনে ঘি ঢালছে বেশ কয়েকটি দেশ। আমেরিকা, ব্রিটেনসহ বেশ কিছু দেশ হংকংয়ের সমর্থনে সমালোচনা করছে চিনের। এর ফলে বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছে বেজিং।  হংকংয়ে নতুন নিরপত্তা আইন অনুমোদনের পর চিনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নড়েচড়ে বসেছে মার্কিন প্রশাসন। ইতিমধ্যেই হংকংয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদ।

এর আগে মঙ্গলবার চিনের পার্লামেন্ট হংকংয়ের নতুন নিরাপত্তা আইন অনুমোদন হয়। বুধবার মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদ সর্বসম্মতিতে হংকংয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞার অনুমোদন দেয়। হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থীদের ওপর নিপীড়ন চালানোর অভিযোগে বেজিংয়ের সঙ্গে যেসব ব্যাঙ্ক লেনদেন করবে তাদের শাস্তি হিসেবে জরিমানার কথা বলা হয়েছে ‍‌‌‌‌‌‌’দ্য হংকং অটোনমি অ্যাক্ট’ নামের নিষেধাজ্ঞা প্রস্তাবটিতে। এই প্রস্তাবটি সিনেটে পাস হওয়ার পর চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য যাবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে।
হংকংয়ের নতুন নিরাপত্তা আইনটিতে বিচ্ছিন্নতাবাদ, কর্তৃপক্ষকে অবমাননা, সন্ত্রাসবাদ ও জাতীয় নিরাপত্তা বিপন্ন করতে বিদেশি বাহিনীর সঙ্গে আঁতাতের অভিযোগে কঠোর শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। তবে হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থীদের অভিযোগ, এই আইনটি হংকংয়ের বাসিন্দাদের বাকস্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক অধিকারকে খর্ব করতে ব্যবহার করবে চিন। 

মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বলেছেন, ‘আইনটি নৃশংস, হংকংয়ের বাসিন্দাদের জন্য নিপীড়নমূলক’। বুধবার থেকে হংকংয়ের মানুষ পরাধীনতার গ্লানি মেখেই পথ চলা শুরু করেছে। চিন সরকারের আরোপিত জাতীয় নিরাপত্তা আইন জারি হওয়ার পর থেকেই হংকংবাসীর জীবনে গভীর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এই আইনের ফলে হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসন, নাগরিক ও সামাজিক স্বাধীনতা খর্ব হবে এবং গোটা অঞ্চলের ওপর বেজিংয়ের কর্তৃত্ববাদী শাসন আরও মজবুত হবে। 

আইনটির বিরোধিতা করে হংকংয়ের বেশ কয়েক স্থানে গতকাল বিক্ষোভ হয়েছে। ব্যস্ততম এলাকা কসওয়ে বে’র রাস্তায় প্রতিবাদকারীরা জড়ো হলে পুলিশ তাদের ওপর পিপার স্প্রে করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পরে জলকামান মোতায়েন করা হয় ওই অঞ্চলে। হংকং-এর পক্ষে ও চিনের বিপক্ষে আমেকিা যে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার বিল পাস করেছে তা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছ বেজিং। চিনের ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেসের বিদেশবিভাগ জানায়, ‍‌‌‌‌‌‌’মার্কিন পদক্ষেপ চিনের অভ্যন্তরীন বিষয়ে হস্তেক্ষপ করেছে, এতে করে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হয়েছে। আমেরিকা যদি ভুল পথে যায় তাহলে চিন পাল্টা ব্যবস্থা নিতে জানে।’

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only