বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০

ঘুষ নেয় না হামাস, তাই ১,৫০০ কোটি ডলারের প্রস্তাব ফিরিয়েছেন হানিয়া

হামাসকে নিরস্ত্র করার বিনিময়ে অর্থ সহযোগিতার প্রস্তাব গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তারা মূলত ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলনের অস্তিত্ব মুছে দিতে চায়। -ইসমাইল হানিয়া

গাজা: অর্থ দিয়ে কেনা যায় না কোনও দলের বিচার ও মতাদর্শ। বিশেষ করে সেই দল যখন অবিচার ও শয়তানি শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠিত কোনও ইসলামি দল হয় তখন তো নয়ই । ফিলিস্তিনের ইসলামি রাজনৈতিক সংগঠন হামাসকে একপ্রকার ঘুষ দেওয়ারই অভিযোগ উঠছে পশ্চিমা বিশ্বের বিরুদ্ধে। হামাসকে অস্ত্র ফেলে রাখার পরিবর্তে ১,৫০০ কোটি ডলার দিতে চেয়েছিল বিশ্বের ক্ষমতাধররা, কিন্তু সেই অফার ফিরিয়ে দিয়েছেন হামাসের রাজনৈতিক শাখার প্রধান ইসমাইল হানিয়া। 

বলেছেন, তার সংগঠন অস্ত্র সমর্পণের শর্তে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলোর কাছ থেকে উন্নয়ন তহবিল হিসেবে ১,৫০০ কোটি ডলার গ্রহণের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে। কাতারের এক পত্রিকাকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এমনই জানিয়েছেন। সাক্ষাৎকারে হামাস প্রধান বলেন, ’দুই মাস আগে কয়েকটি দল আমাদের কাছে এসেছিল যারা বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলোর কাছ থেকে অর্থ নিয়ে থাকে। তারা আমাদেরকে গাজা উপত্যকার উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য দেড় হাজার কোটি ডলার দেওয়ার প্রস্তাব দেয়। আমরা বলেছি, খুবই সুন্দর প্রস্তাব। অবশ্যই আমরা গাজায় একটি বিমানবন্দর ও সমুদ্রবন্দর প্রতিষ্ঠা করতে চাই। এছাড়া, অন্যান্য অর্থনৈতিক প্রকল্প হাতে নিতে চাই।’

কাতারের রাজধানী দোহায় বসবাসকারী ইসমাইল হানিয়া জানান, উন্নয়ন তহবিল দেওয়ার বিনিময়ে তারা হামাসের সামরিক সক্ষমতা ত্যাগ করার প্রস্তাব দিয়েছিল। এখানেই চুক্তিটিকে নস্যাৎ করে দেন হামাস প্রধান। ইসমাইল হানিয়া বলেন, ‘হামাসকে নিরস্ত্র করার বিনিময়ে অর্থ সহযোগিতার প্রস্তাব কোনওভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তারা মূলত ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলনের অস্তিত্ব মুছে দিতে চায়। কিন্তু হামাস তা হতে দেবে না বরং হামাস গাজার ওপরে চাপানো অবরোধ ভাঙবে এবং সেখানে উন্নত প্রকল্প হাতে নেবে। এগুলো আমাদের অধিকার, রাজনৈতিক আদর্শ বিসর্জন দিয়ে তা গ্রহণ করা সম্ভব নয়।’

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only