বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই, ২০২০

চৈতন্যপুর বাউড়িপাড়া-চক রাস্তা সংস্কারের দাবি স্থানীয়দের

সেখ কুতুবউদ্দিন
মঙ্গলকোটের কৈচর-২ পঞ্চায়েতের চৈতন্যপুর থেকে চক-জাগেশ্বরডিহির যাতায়াতের রাস্তার বেহাল অবস্থা। বনকাপাসি পঞ্চায়েত অর্থাৎ কৈচর-২ এর বর্ধমান-কাটোয়া রোর্ডের জাগেশ্বরডিহির ডুমুরতলা থেকে চক হয়ে চৈতন্যপুর পর্যন্ত রাস্তাটি জেলা পরিষদের। তবু রাস্তা সংস্কারের সিংহভাগে ঢালাই ও পিচ দেওয়ার কাজ করেছে কৈচর-২ পঞ্চায়েতের কর্মকর্তারা। চক-এর শেষ থেকে চৈতন্যপুর পর্যন্ত রাস্তাটি শিমুলিয়া পঞ্চায়েতের অন্তর্ভুক্ত। শিমুলিয়া পঞ্চায়েতের সদস্যদের দীর্ঘদিন ধরে জানানো হলেও কর্মকর্তারা ঢালাই বা পিচ রাস্তার কোন উদ্যোগ নেয়নি।

 রাস্তাটি নিয়ে এর আগেও বহুবার লেখা-লেখি হয়েছে। তবে কাজ এগোলেও অর্ধ কিলোমিটারেরও কম রাস্তা নিয়ে কোনও মাথাব্যাথা নেই শিমুলিয়া-১ পঞ্চায়েত কর্তূপক্ষের। চৈতন্যপুর, চক, জাগেশ্বরডিহির বাসিন্দাদের বক্তব্য, দীর্ঘদিন সংস্কারের অভাবে রাস্তার অবস্থা খারাপ। অল্প বৃষ্টিতেই জল-কাদায় চলাফেরার অযোগ্য হয়ে যাচ্ছে রাস্তার ওই অংশ। এলাকার মানুষ সহ রাস্তার এই উপরই বহু গ্রামের যোগাযোগ নির্ভর করে বহু গ্রামের মানুষদের। চক, জাগেশ্বরডিহি, বনকাপাসি। অন্যদিকে, মাথরুন, চৈতন্যপুর, খুদরুন, যেতে গেলে একটু বূষ্টি হলেই প্রায় দশ কিলোমিটার বেশি রাস্তা অর্থাৎ কৈচর দিয়ে ঘুরে যেতে হয়। এতেই ক্ষোভ এলাকাবাসীদের। 

স্থানীয়রা চাইছেন, দ্রুত এই রাস্তার সংস্কার করা হোক।   সারা বছর কষ্ট করে যাতায়াত করা গেলেও বেশি সমস্যা হয় বর্ষায়। একটু বৃষ্টি হলেই  মোড়াম উঠে যাওয়া মাটির রাস্তা জল-কাদায় ভয়ঙ্কর রূপ নেয়।  এতে চক গ্রামের ছেলেমেয়েদের মাথরুন স্কুলে যাতায়াতে অসুবিধার মধ্যে পড়তে হচ্ছে রাস্তার কাজ সামান্য বাকী থাকার জন্য। বিষয়টি নিয়ে রাজ্য বিডিও ও দুই পঞ্চায়েতের প্রধান, জেলা পরিষদকে লিখিত ভাবে জানাচ্ছেন পড়ুয়াদের অভিভাবক ও বাসিন্দারা। পাশাপাশি রাস্তার উপর অবস্থিত এককুড়িপাড়ের কাছের একটি ব্রীজও ভগ্ন প্রায়। সেই ব্রীজ সংস্কারের উদ্যোগ ও চক গ্রামের রাস্তার ধারের ড্রেনগুলি পাকা করার দাবি স্থানীয়দের। 

 মঙ্গলকোট ব্লকের বিডিও মোস্তাক আহমেদ বলেন,  সমস্ত রাস্তা তৈরির উপর গুরুত্ব রয়েছে। ওই রাস্তার বাকী অংশের কাজ যাতে হয় তার উদ্যোগ নেওয়া হবে। প্রয়োজনে কৈচর-২ পঞ্চায়েত এবং শিমুলিয়া-১ পঞ্চায়েতের প্রধান ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের সঙ্গেও আলোচনা করা হবে।

জেলা পরিষদের সদস্য পূর্ণিমা দাস বলেন,  মঙ্গলকোর্টের বহু রাস্তার সংস্কার কাজ চলছে। চৈতন্যপুর-জাগেশ্বরডিহি রাস্তাটির কাজ পরের রোস্টারে ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টাও চলছে।

ওই রাস্তার কাজ প্রসঙ্গে শিমুলিয়া-১ পঞ্চায়েতের প্রধান মাধব দাস বলেন, রাস্তাটি যাতে সংস্কার হয় সেই বিষয়ে আলোচনা করে উদ্যোগ নেওয়া হবে। তিনি বলেন,  আমিও চাই রাস্তাটি অসম্পূর্ণ কাজ হোক। চৈতন্যপুর বাউড়িপাড়ার বাসিন্দাদেরও দীর্ঘদিনের দাবি রয়েছে।

কৈচর-২ পঞ্চায়েতের উপ-প্রধানের ইনামুল হক ( উজ্জ্বল)- এর বক্তব্য, এই পঞ্চায়েত নিজের এক্তিয়ারের পাশাপাশি মানুষের সুবিধার্থে অন্য পঞ্চায়েতের কাজও করেছে। আগামীতে  উন্নয়নের কাজের ধারা অব্যাহত থাকবে বলেন তিনি জানান। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only