রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০

৪০ বছর ধরে নামাযিদের জুতো পাহারায় এক অমুসলিম!



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: সম্প্রীতি আর সৌহার্দ্যের বাতাবরণে দেশের ঐতিহ্য আজও বহমান কখনও দেখা যায় মুসলিমরা হিন্দু প্রতিবেশীর দেহ সৎকার করছেন কখনও দেখা যায় হিন্দু প্রতিবেশী মুসলিমদের সাহায্যে মন্দিরের দরজা খুলে দিতে এবার এক শিখ সব্জি বিক্রেতাকে দেখা গেল প্রায় ৪০ বছর ধরে জুম্মার নামাযের সময় মসজিদের বাইরে থাকা মুসল্লিদের জুতো পাহারা দিতে অমৃতসর শহরের সরু গলির মধ্যে থাকা খাইরুদ্দিন মসজিদে সম্প্রীতির বার্তা দিতে এভাবেই নামাযিদের সেবা দিয়ে চলেছেন ৬০ বছর বয়স্ক বলজিন্দার সিং 

বলজিন্দর সিং
মসজিদে এভাবে মুসলিমদের সেবা করে আসা বলজিন্দার বলেন, আমি জন্মে শিখ এবং ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শের চরিত্রের গুরু নানক যে সম্প্রীতি ও সৌভ্রাতৃত্বের বার্তা দিয়ে গেছেন তা প্রসারিত করতে মসজিদকেই বেছে নিয়েছি

এলাকায় ভাইজি ও সরদারজি বলে পরিচিত বলজিন্দার সিং মসজিদের নামাযিদের জন্য এই সেবাকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন সেই ১৯৮০ সাল থেকে এ নিয়ে বলবিন্দার বলেন, জুম্মার নামযের সময় আমি নামাযিদের জুতো পাহারা দিই যাতে ওই নামাযি নিশ্চিন্ত মনে নামায পড়তে পারেন তিনি স্মরণ করিয়ে দেন, তার বংশধররাও  ৯০ বছর ধরে আট্টা মান্ডির স্বর্ণ মন্দিরে ‘জুতো সেবা’ করে আসছে তাই সেবা করা তার রক্তে রয়েছে

সব্জি বিক্রেতা বলজিন্দার আরও জানান, প্রতি শুক্রবার সকালে সব্জি বিক্রি করার পর দুপুরের আগেই মুক্ত থাকি তখন মসজিদের গিয়ে জুতো পাহারা দেওয়ার কাজে লেগে যাই তার এক ছেলে বলদেব সিং মুদিখানা ব্যবসায় সাহায্য করেন আর এক ছেলে বারিন্দার সিং মালয়েশিয়ায় পাকাপাকি ভাবে থাকেন

তবে, বলজিন্দারের এই ত্যাগের বিষয়ে খাইরুদ্দিন জামা মসজিদের ইমাম মাওলানা হামিদ হুসেন বলেন, আমি আমার জীবনে বলজিন্দারের মতো এমনভাবে নিজেকে নিঃস্বার্থভাবে নিয়োজিত হওয়ার মতো মানুষকে তেমন দেখিনি


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only