বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০

ভুয়ো ক্ষতিগ্রস্তদের থেকে ক্ষতিপূরণের টাকা ফেরত নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত বাসিন্দাদের লাগাতার ক্ষোভ-বিক্ষোভের জেরে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে চাপে পড়ে বুধবার পর্যন্ত দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসন আমফানের ভুয়ো ক্ষতিগ্রস্থদের কাছ থেকে ক্ষতিপূরণের ৪২ লক্ষ টাকা ফেরত পেয়েছে। মথুরাপুর, নামখানা ও সাগর, কুলপি ব্লক থেকে এই টাকা ফেরত পাওয়া গিয়েছে বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

আগামী কয়েকদিনের মধ্যে আরও টাকা ফেরত পাওয়া যাবে। ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক পঞ্চায়েতে ত্রাণ কমিটি তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। গত শনিবার থেকে এই কমিটি পঞ্চায়েত ধরে কাজ শুরু করেছে। এই কমিটিতে পঞ্চায়েত, পুলিশ ও ব্লকের একজন করে প্রতিনিধি আছেন।তাঁরাই প্রত্যেক গ্রামে গিয়ে দুর্গতদের তালিকা খতিয়ে দেখছেন।

কেউ ভুয়ো নাম তুলে টাকা পেলে ফেরতের কথা জানিয়ে দিচ্ছে এই কমিটি। সেই কমিটি এক সপ্তাহ ধরে এই কাজ করে সংশোধিত তালিকা তৈরি করবে। পাশাপাশি টাকা ফেরতের তালিকাও তৈরি করবে। এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্থরা স্থানীয় বিডিও ও থানাতে আবেদন করছেন। গত কয়েক দিনে আবেদন করার দীর্ঘ লাইন দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন ব্লক অফিস ও থানাতে।

আমফানে ক্ষতিগ্রস্থদের বাড়ি তৈরির জন্য এককালীন ২০ হাজার টাকা ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি ঢুকিয়ে দেওয়ার ঘোষণা করে রাজ্য সরকার। সেই ঘোষণার পর পঞ্চায়েতের মাধ্যমে তালিকা তৈরি করা হয়। সেই তালিকা থেকে প্রথম পর্যায়ে ক্ষতিপূরণের টাকা ঢোকানো হয়। সেই তালিকা ঘিরে কিছু কিছু ব্লকে স্বজনপোষণ ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। রাজ্য সরকার কড়া মনোভাব দেখায়। স্বজনপোষণ ও দুর্নীতিতে অভিযুক্তদের দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয় তৃণমূল। প্রশাসনিক স্তরে বিডিওরা সরাসরি হস্তক্ষেপ করেন। শুরু হয় তদন্ত। সর্বদলীয় বৈঠক করা হয়। সেই বৈঠক থেকে ক্ষতিপূণের তালিকা নিয়ে প্রস্তাব নেওয়া হয়। ইতিমধ্যে তালিকা তৈরির কাজ অনেকটা এগিয়ে গিয়েছে। তালিকা থেকে বেশ কিছু নাম বাদ পড়েছে। সংযোজিত হচ্ছে নাম।

বুধবার বিকেল পর্যন্ত ডায়মন্ড হারবার মহকুমার মথুরাপুর ব্লক থেকে ১০৫ জন টাকা ফেরত দিয়েছেন। ২১ লক্ষ টাকা ফেরত এসেছে। নামখানা ব্লক থেকে ফেরত এসেছে ১০ লক্ষ টাকা। এছাড়াও সাগর ব্লকে ফেরানো টাকা ১০ লক্ষের বেশী। সবমিলিয়ে এদিন পর্যন্ত ৪২ লক্ষ টাকা ফেরত নিয়েছে প্রশাসন।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা শাসক পি উলগানাথ বলেন,‘‌ প্রতিটি পঞ্চায়েত ধরে কমিটি কাজ করছে। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্থরা ক্ষতিপূরণের টাকা পাবেন। বাড়ি সারাইয়ের ২০ হাজার টাকা ছাড়াও পানবরজ, পুকুর সংস্কারের জন্যও ক্ষতিপূরণের টাকা দেওয়া হচ্ছে।

ক্ষতিগ্রস্থ নয়, এমন কেউ টাকা পেলে সেই টাকাও ফেরানোর কথা জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে।’‌ সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী মন্টুরাম পাখিরা বলেন,‘‌ দলের কেউ যদি প্রভাব খাটিয়ে স্বজনপোষণ ও দুর্নীতি করে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতিমধ্যে দলীয়ভাবে অনেককে টাকা ফেরাতে বলা হয়েছে। বিরোধীদের পঞ্চায়েতগুলোতেও অনেক গরমিল আছে। সেই তথ্যও আমরা পাচ্ছি। ক্ষতিগ্রস্থরা ত্রাণ পাবেন।’‌

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only