শনিবার, ২৫ জুলাই, ২০২০

হাজিয়া সোফিয়া থাকবে ইস্টাগ্রাম বিখ্যাত গ্লি-এর বাসস্থান



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: ৮৬ বছর পর ফের হাজিয়া সোফিয়া এখন মসজিদে র*পান্তরিত হয়েছে। শুক্রবার ধ্বনিত হয়েছে আযান। টেলিভিশনের পর্দায় বিশ্ববাসী দেখেছে রাজকীয় জুম্মার নামাযের দৃশ্য। কিন্তু কয়েকদিন আগেই হাজিয়া সোফিয়াকে  মিউজিয়াম থেকে মসজিদে র*পান্তরিত করার ডিগ্রি জারি  হলে একটি আশংকা দেখা দেয় ইন্সস্টাগ্রাম বিখ্যাত ‘গ্লি’-কে নিয়ে।  

সবুজ চোখ, ধুসর লোমাশ, নাদুস-নুদুস চেহারার বিড়াল ‘গ্লি’ হাজিয়া সোফিয়ার মতোই বিখ্যাত। তার বাসস্থান হাজিয়া সোফিয়া। কিন্তু তুরস্ক সরকার আদৌ তাকে হাজিয়া সোফিয়া থাকতে দেবে কি না? তানিয়েই তৈরি হয়েছিল আশঙ্কা। 

তবে সহৃদয় তুরস্ক সরকার জানে কিভাবে সকলের মন পেতে হয়। তাই গ্লি-বাসস্থান যে হাজিয়া সোফিয়াই থাকবে তা নিয়ে সরকারিভাবে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে।প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন জানিয়েছে,‘গ্লি’-এর পাশাপাশি ওই চত্বরের অন্যান্য বিড়ালরা যেখানে ছিল সেখানেই থাকবে। বিড়ালটি খুব বিখ্যাত হয়ে উঠেছে এবং আরও কিছু আছে যারা এখন বিখ্যাত হয়ে ওঠেনি। বিড়ালটি সেখানে থাকবে এবং সমস্ত বিড়ালকেই আমাদের মসজিদে স্বাগত।

পর্যটকরা হাজিয়া সোফিয়াতে ঢুকলেই ‘গ্লি’ তাদের প্রধান আকর্ষন হয়ে ওঠে। চারপেয়ী গ্লি-এর বাসস্থান হল হাজিয়া সোফিয়াই। পর্যটকদের সঙ্গে গ্লি-এর বহু ছবি সোস্যাল মিডিয়া ঘুরে বেড়ায়। তবে গ্লি-র বিখ্যাত হওয়ার পিছনেও একটি ঘটনা রয়েছে। ২০০৯ সালে ইস্তান্বুলে হাজিয়া সোফিয়া পরিদর্শন করতে এসে ছিলেন তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। ‘গ্লি’-কে তিনিই প্রথম লক্ষ্য করেন। কয়েকটি ছবিও তুলে ইন্সটাগ্রামে দেন ওবামা। এই ঘটনার পর থেকেই বিখ্যাত হয়ে ওঠে ‘গ্লি’।   
     

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only