রবিবার, ৩০ আগস্ট, ২০২০

দাদাকে খুন করে উঠোনে পুঁতে রেখে ৬ বছর পর অনুশোচনা


পুবের কলম ওয়েব ডেস্কঃ   ­ পৈতৃক সম্পত্তি নিয়ে বচসাকে কেন্দ্র করে ছ’বছর আগে রাগের বশবর্তী হয়ে নিজের দাদাকে কাণ্ডজ্ঞাণহীনভাবে খুন করেছিলেন দুই ভাই। এখানেই থেমে না থেকে খুনের পর প্রমাণ লোপাট করতে বসতবাড়ির উঠোনেই দাদার মৃতদেহ পুঁতে দেয় তারা। এরপর দীর্ঘ কয়েক বছর কেটে গেলেও কাকপক্ষীতেও এ ঘটনা টের পায়নি। ছ’বছর বাদে অনুশোচনাবশত থানায় গিয়ে নিজের দাদার খুনের কথা কবুল করে সেই দুই ভাই। ঘটনায় তাজ্জব বনে গেছে পুলিশও। শেষপর্যন্ত পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন ওই দুই ভাই। এমনই আশ্চর্যজনক ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার শ্যামনগরের কাউগাছি ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার। অভিযুক্ত দু’ভাইয়ের নাম অপু শীল ও তপু শীল। অভিযুক্তদের দাদা নিপু শীলকেই তারা খুন করেছিল।

 পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে খবর, জগদ্দল থানার অধীন শ্যামনগরের বাসিন্দা তিন ভাই অপু শীল, তপু শীল ও নিপু শীল। পৈতৃক সম্পত্তি নিয়ে বিবাদের জেরে ২০১৪ সালের ১০ ডিসেম্বর অপু ও তপু মিলে দাদা নিপুকে খুন করে। পুলিশের কাছে এই বয়ান দেওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে মাটি খুঁড়ে নিপুর কঙ্কাল উদ্ধার করে। নিপুর জামা প্যান্ট দেখে প্রতিবেশীরাই তাঁকে শনাক্তও করেছেন। আর এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়। 

প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশ জানতে পেরেছে, বাবা মায়ের মৃত্যুর পর শীল পরিবারের ৩ ভাই একই বাড়িতে থাকতেন। তিনজনই অবিবাহিত ছিলেন। দাদা নিপু পেশায় সিভিল ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন। দু’ভাই তখনও কোনও পেশায় যুক্ত হননি। ওই সময় বাবার সম্পত্তি নিয়ে প্রায়ই অশান্তি হত তিন ভাইয়ের মধ্যে। এরই মধ্যে একটি অশান্তির সময় নিপুকে খুন করে দেহ বাড়ির উঠানে পুঁতে দেয় তাঁর দুই ভাই। এরপর রাতারাতি অপু ও তপু ওই বাড়ি থেকে বেপাত্তা হয়ে যায়। স্থানীয়রা মনে করেন যে তিন ভাই অন্যত্র কোথাও গেছেন। এরপর থেকে বছরের পর বছর কেটে গেলেও ওই বাড়িতে কারওর দেখা মেলেনি। তালাবন্ধ অবস্থাতেই বাড়িটি পড়ে ছিল। এরমধ্যে গত বৃহস্পতিবার আচমকা অপু শীলকে বাড়ি পরিষ্কার করতে দেখা যায়। সে তখন প্রতিবেশীদের জানায় তাঁর তিন ভাই ভিনরাজ্যে কর্মরত আছেন। এরপরেই অপু সটান থানায় গিয়ে পুলিশকে নিজেদের কাণ্ডজ্ঞানহীনতার কথা জানান। প্রাথমিকভাবে পুলিশ হালকা ছলে নিলেও পরে পুলিশ অপু ও তাঁর ভাই তপুর সঙ্গে তাঁদের বাড়ি গিয়ে মাটি খুঁড়তেই উদ্ধার হয় একটি কঙ্কাল। তাজ্জব বনে যান পুলিশ অফিসাররা। পুলিশ জানিয়েছে– ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যে স্বীকারোক্তি দুই ভাই দিয়েছেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। খুনের পিছনে অন্য কোনও কারণ আছে কিনা এবং মৃতদেহের যথাযথ পরীক্ষা করা হবে বলে পুলিশ জানা গিয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only